মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমঝোতায় আসা উচিত ভারতের: মিজোরাম মুখ্যমন্ত্রী
মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমঝোতায় আসা উচিত ভারতের: মিজোরাম মুখ্যমন্ত্রী

সংগৃহীত ছবি

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সমঝোতায় আসা উচিত ভারতের: মিজোরাম মুখ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

মিয়ানমারের সাথে ১৬০০ কিলোমিটার দীর্ঘ আন্তর্জাতিক সীমান্ত ভারতের। তবে গত বেশ ক’বছর যাবতই সীমান্ত ঘেঁষে সংঘাত চালাচ্ছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। তাতে সীমান্তের এপারে বাংলাদেশের মতো উদ্বিগ্ন মায়ানমার সীমান্ত ঘেঁষা ভারতের মিজোরাম রাজ্য। এ বিষয়ে প্রতিবেশী দেশে শান্তি পুনরুদ্ধার ও সমস্যা নিরসনে মিয়ানমারের সামরিক কর্তৃপক্ষের সাথে ভারতের সমঝোতায় আসা উচিত বলে মনে করেন মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা।

জোরামথাঙ্গা বলেন, ‘আমরা মিয়ানমারের কিছু মহলের কাছ থেকে সাহায্যের অনুরোধ পেয়েছি, সেখানে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখল করে অত্যাচার চালাচ্ছে। সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় ভারতের এগিয়ে আসা উচিত। এটি আমাদের দেশের জন্য একটি সুবর্ণ সুযোগ। আমরা অতীতেও শান্তি পুনরুদ্ধারের জন্য আলোচনা করেছি।

মুখ্যমন্ত্রী আরও জানিয়েছে গত কয়েক বছর আগে তাকে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সাথে একটি শান্তি মিশনে মিয়ানমারে পাঠানো হয়েছিল।

এর আগে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে সামরিক জান্তা মিয়ানমারের ক্ষমতা দখলের পর থেকে ৩০ হাজারের বেশি মিয়ানমারের নাগরিক মিজোরামের বিভিন্ন অংশে আশ্রয় নিয়েছেন। শরণার্থীরা, বেশিরভাগই চিন রাজ্যের, ত্রাণ শিবিরে অবস্থান করছেন, আবার কেউ কেউ বাড়ি ভাড়া নিয়েছে এবং স্থানীয় আত্মীয়দের সাথে বসবাস করছে।

এসব মায়ানমারের নাগরিকদের সরকার, এনজিও, গির্জা এবং গ্রাম কর্তৃপক্ষের দ্বারা খাদ্য এবং অন্যান্য ত্রাণ সরবরাহ করা হচ্ছে। রাজ্যে যারা আশ্রয় নিয়েছে তাদের মধ্যে অনেকেই চিন সম্প্রদায়ের, যা জো, সম্প্রদায় নামেও পরিচিত। তারা মিজোরামের মিজোদের মতো একই বংশ ও সংস্কৃতি ভাগ করে নেয়।

news24bd.tv/আমিরুল