দীপ্তিকে প্রতারক বলে ভারতীয়দের গালমন্দ শুনছেন পাকিস্তানের আসিফ
দীপ্তিকে প্রতারক বলে ভারতীয়দের গালমন্দ শুনছেন পাকিস্তানের আসিফ

সংগৃহীত ছবি

দীপ্তিকে প্রতারক বলে ভারতীয়দের গালমন্দ শুনছেন পাকিস্তানের আসিফ

অনলাইন ডেস্ক

মানকাডিং ক্রিকেটে বৈধই। তবে ক্রিকেটের চেতনা পরিপন্থী বলে কি-না, সচরাচর মানকাডিং করতে দেখা যায় না বোলারদের। হঠাৎ এরকম কোনো ঘটনা ঘটলে তাই আলোচনা-সমালোচনা হয় ব্যাপক।

কিছুদিন আগে এই মানকাডিংকে সাধারণ রানআউটের অন্তর্ভুক্ত করেছে ক্রিকেটের আইন প্রণয়নকারী সংস্থা মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাব (এমসিসি)।

অর্থাৎ, এখন থেকে মানকাডিং নিয়ে কারও কোনো প্রশ্ন তোলার সুযোগ নেই। তবে এমসিসির সেই ঘোষণার পরও ভারতের নারী দলের ক্রিকেটার দীপ্তি শর্মার মানকাডিং নিয়ে তুমুল সমালোচনা হচ্ছে।

শনিবার লর্ডসে ভারত ও ইংল্যান্ডের মেয়েদের ওয়ানডে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে শার্লট ডিনকে মানকাডিং করেন ভারতের দীপ্তি শর্মা। রান তাড়া করতে নামা ইংল্যান্ডের তখন ম্যাচ জিততে ৩৮ বলে দরকার ছিল ১৭ রান।

সেই সময় একটি রান নেওয়ার জন্য নন-স্ট্রাইকে থাকা ডিন বল ছাড়ার আগেই ক্রিজ থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন।

দীপ্তি সুযোগটা কাজে লাগান। বল ডেলিভারি না দিয়ে রান আউট করেন ডিনকে। অলআউট হয়ে যায় ইংল্যান্ড। ম্যাচ জেতে ভারত। পেন্ডুলামের মতো দুলতে থাকা ম্যাচে দীপ্তির অমন কাণ্ড মেনে নিতে পারেনি ইংল্যান্ডের মেয়েরা। ম্যাচ শেষে তাই ইংল্যান্ডের অধিনায়ক অ্যামি জোনস তাই ফুঁসছিলেন।

দীপ্তির এমন কাণ্ডের পর পক্ষে-বিপক্ষে অনেক কথা হচ্ছে। এর মধ্যে পাকিস্তানের সাবেক ফাস্ট বোলার মোহাম্মদ আসিফ তো কটাক্ষ করেছেন দীপ্তিকে। তাকে ‘প্রতারক’ বলে অভিহিত করেছেন আসিফ। টুইটে তিনি লেখেন, ‘আমরা পরিষ্কার দেখতে পাচ্ছি, তার বোলিং করার কোনো ইচ্ছাই ছিল না। সে নন-স্ট্রাইকার ব্যাটারকে প্রতারণা করার দিকেই মনোযোগী ছিল। এটি অন্যায্য এবং ভয়ংকর নেতিবাচকতা। ’

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী শিবিরের বলেই কি-না, আসিফের এমন মন্তব্য মেনে নিতে পারেনি ভারতীয়রা। তাকে নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। তাকে খোটা দিতে অনেকে তার পুরনো অন্ধকার অতীতের কথা টেনে আনছেন। এক টুইট ব্যবহারকারী লিখেছেন, ‘ফিক্সার বলছে চেতনার কথা, পরিহাসেরও সীমা থাকে। ’

আরেকজন লিখেছেন, ‘অল্প কিছু টাকার জন্য যে ক্রিকেটার তার দেশের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন, তিনি কিনা ভদ্রলোকের মতো কথা বলছেন। ভাই, আপনি ঠিক আছেন তো?’ স্পট ফিক্সিংয়ের কারণে নিষিদ্ধ হওয়া এই ক্রিকেটারকে নিয়ে এমন আরও মন্তব্য এখন ঘুরছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

news24bd.tv/সাব্বির