মরিয়ম মান্নানের মায়ের আত্মগোপন ‘পরিকল্পিত’ দাবি
মরিয়ম মান্নানের মায়ের আত্মগোপন ‘পরিকল্পিত’ দাবি

সংগৃহীত ছবি

মরিয়ম মান্নানের মায়ের আত্মগোপন ‘পরিকল্পিত’ দাবি

খুলনা প্রতিনিধ

খুলনার মহেশ্বরপাশা থেকে রহিমা বেগমের নিখোঁজের ঘটনাটি ‘পরিকল্পিত’ দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। এ সময় রহিমা বেগমের আত্মগোপনের ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবি করা হয়।  

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে খুলনা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি করেন যোগীপোল ইউনিয়নের সদস্য মামুন শেখ। এ সময় অপহরণের মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মুক্তিও দাবি করা হয়।

 

অপহরণ মামলার আসামি মো. মহিউদ্দীনের মেয়ে স্কুলছাত্রী মালিহা মহিউদ্দিন সংবাদ সম্মেলনে জানায়, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে এর আগেও রহিমা বেগম প্রতিবেশী শরিফুল ও শুকুর আলীর বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করেন। যা পুলিশের  তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হয়।  

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, এবারও জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে মিথ্যা অপহরণ মামলায় মো. মহিউদ্দিন, গোলাম কিবরিয়া, রফিকুল ইসলাম পলাশ, জুয়েল ও হেলাল শরীফকে গ্রেপ্তার করানো হয়েছে। মরিয়ম মান্নান প্রভাবশালী মহলকে ভুল বুঝিয়ে ও প্রশাসনকে চাপে ফেলে এ কাজ করেছেন।

নিখোঁজের ২৯ দিন পর বোয়ালমারী উপজেলার সৈয়দপুর থেকে রহিমাকে উদ্ধার করা হয়। তখন তার কাছ থেকে কাপড়, ওষুধ, প্রসাধনী সামগ্রী পাওয়া যায়। অপহৃত ব্যক্তির কাছে এসব জিনিসপত্র থাকার কথা নয়। তারপরও রহিমা বেগম আদালতে মিথ্যা জবানবন্দী দিয়ে নিরীহ প্রতিবেশীদের হয়রানির চেষ্টা করছেন। ফরিদপুরে নতুন জন্ম সনদ তৈরি করে পরিচয় গোপনের চেষ্টাও করছিলেন তিনি।

এদিকে পিবিআই এর খুলনার পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান জানান, জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য  অনুযায়ী, রহিমা বেগমকে অপহরণের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। বরং জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিবেশীদের ফাঁসানোর চেষ্টা হতে পারে।

অপরদিকে মরিয়ম মান্নান মোবাইল ফোনে জানান, মা আত্মগোপন করেছে নাকি তাকে অপহরণ করা হয়েছে, এ বিষয়টি আমার কাছে এখনও পরিষ্কার নয়। আমরা বারবার মাকে ফেরত পাওয়ার চেষ্টা করেছি। মা যদি কোনও ভুল করে সেটার সংশোধনও থাকবে।

news24bd.tv/হারুন