ভারতে গর্ভপাত করতে পারবে সকল নারী
ভারতে গর্ভপাত করতে পারবে সকল নারী

সংগৃহীত ছবি

ভারতে গর্ভপাত করতে পারবে সকল নারী

অনলাইন ডেস্ক

গর্ভপাত ও বৈবাহিক ধর্ষণ নিয়ে এক রায় দিয়েছে ভারতের সর্বোচ্চ আদালত। এটিকে ‘যুগান্তকারী’ বলে আখ্যা দিয়েছেন দেশটির সমাজকর্মীরা। রায় অনুযায়ী, বিবাহিত কিংবা অবিবাহিত সকল ভারতীয় নারী নিজেদের ইচ্ছামত গর্ভপাত করতে পারবেন।

‘মেডিক্যাল টার্মিনেশন অব প্রেগন্যান্সি আইন’ (এমটিপি) নিয়ে এক মামলায় বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়, এএস বোপান্না ও জেবি পারদিওয়ালার বেঞ্চ এ রায় দেন।

রায়ের পর বিচারকরা বলেন, গর্ভপাতের অধিকার সব নারীর রয়েছে। কেউ অবিবাহিত বলে ওই অধিকার থেকে বঞ্চিত হতে পারেন না।  

রায়ে আদালত বলছে, একজন নারীর বৈবাহিক অবস্থা তাকে গর্ভপাতের অধিকার থেকে বঞ্চিত করার কোনো কারণ হতে পারে না। কোনো অবিবাহিত নারীও চাইলে ২৪ সপ্তাহের মধ্যে অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণের অবসান ঘটাতে পারবেন।

রায়ে বৈবাহিক ধর্ষণের বিষয়েও মন্তব্য করেছেন আদালত। বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় বলেন, ‘বিনা সম্মতিতে যৌন সম্পর্ক করা এবং সে সম্পর্কের জন্য হিংসার আশ্রয় নেওয়ার অর্থ ধর্ষণ।  এ ক্ষেত্রে নারীরা অনিচ্ছাকৃতভাবে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়তে পারেন। জোর করে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের জেরে কোনো নারীকে গর্ভবতী করাও এক প্রকারের ধর্ষণ। ’

২৫ বছর বয়সী এক অবিবাহিত নারীর রিট আবেদনের ভিত্তিতে এই যুগান্তকারী রায়টি দিয়েছেন আদালত। ওই নারী দিল্লি হাইকোর্টের একটি আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করেছিলেন যে তিনি অবিবাহিত হওয়ায় এই আইনের অধীনে গর্ভপাতের অধিকারী নন।  

দেশটির সমাজকর্মীরা বলছেন, এই রায় ভারতীয় নারীদের অধিকারের জন্য একটি মাইলফলক।

রায়ের পর এক টুইট বার্তায় দেশটির সংসদ সদস্য মহুয়া মৈত্রা বলেন, ‘নারীদের এগিয়ে যাওয়ায় পথে রায়টি বিশাল এক পদক্ষেপ। ’

লিঙ্গ বৈষম্য নিয়ে কাজ করা ভারতের সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী করুণা নন্ডি বলেন, ‘বিবাহিত, অবিবাহিত কিংবা তালাকপ্রাপ্ত নারীদের বৈষম্যহীনতার ওপর ভিত্তি করে রায়টি দেয়া হয়েছে। ’

news24bd.tv/মামুন