গ্রীসে ১২ শতাংশ ছাড়িয়েছে মুদ্রাস্ফীতি
গ্রীসে ১২ শতাংশ ছাড়িয়েছে মুদ্রাস্ফীতি

সংগৃহীত ছবি

গ্রীসে ১২ শতাংশ ছাড়িয়েছে মুদ্রাস্ফীতি

অনলাইন ডেস্ক

করোনা মহামারীসহ রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে মুদ্রাস্ফীতির কবলে ইউরোপের অন্যতম অর্থনীতির দেশ গ্রীস। দেশটিতে বেড়েই চলছে মুদ্রাস্ফীতি। সেপ্টেম্বর শেষে যা ১২ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। শুক্রবার ইউরোস্ট্যাট প্রকাশ করেছে এমন তথ্য।

অন্যান্য ইউরোজোন সদস্য দেশ এবং বিশ্বের অন্যান্য অংশের মতো, আকাশ ছোঁয়া জ্বালানির দাম এবং খাদ্য মূল্যের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধির ফলে রেকর্ড মুদ্রাস্ফীতির কবলে গ্রীস। গত আগস্ট মাসে যেখানে মূল্যস্ফীতি ছিল ১১.২ শতাংশ। তা সেপ্টেম্বর শেষে ১২ শতাংশ ছাড়িয়েছে। যা আগামীতে দেশটির জন্য বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে বলে মনে করছেন দেশটির প্রধান বিরোধী দল, সায়রিজা-পিএস।

 

চলমান এই মুদ্রাস্ফীতির কারণে আগামীতে ভয়াবহ বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হবে গ্রীকদের এমনটিই আশঙ্কা করছে দলটি। এ জন্য তারা পার্টির অর্থনীতি এবং উন্নয়ন নীতির জন্য দুই সিনিয়র ডেপুটি, অ্যালেক্সিস চ্যারিটিসিস এবং ইফি অ্যাচসিওগ্লোরকে দায়ী করে একটি বিবৃতি দিয়েছে দলটি। যেখানে বলা হয়েছে, গ্রীক মুদ্রাস্ফীতি ইউরোপীয় গড় থেকে ধারাবাহিকভাবে বেশি।

গ্রীক পরিসংখ্যান কর্তৃপক্ষ বলছে, দরিদ্র পরিবারগুলি তাদের আয়ের ৮০% ভাড়া এবং খাবারে ব্যয় করে, সরকার একগুঁয়েভাবে খাদ্য এবং জ্বালানীর উপর পরোক্ষ কর কমাতে অস্বীকার করেছে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘শক্তি এবং খাদ্যের মূল্য বৃদ্ধির ফলে সুনামির মুখে শ্রমিক এবং তাদের পরিবার। ব্যবসায়ীদের হতাশার দিকে পরিচালিত করে মুনাফাখোরকে ভর্তুকি দেওয়ার উপর জোর দিচ্ছে সরকার। ’

news24bd.tv/আমিরুল