সীমিত করা হয়েছে পঞ্চগড়ের দুর্গাপূজার অনুষ্ঠান
সীমিত করা হয়েছে পঞ্চগড়ের দুর্গাপূজার অনুষ্ঠান

মৃতদের স্বজনদের আহাজারি

সীমিত করা হয়েছে পঞ্চগড়ের দুর্গাপূজার অনুষ্ঠান

রেজাউল করিম মানিক, পঞ্চগড় থেকে

পঞ্চগড়ের বোদায় নৌকাডুবিতে অন্তত ৭০ জনের প্রাণহানির শোক এখনও বয়ে বেড়াচ্ছেন জেলার সনাতন ধর্মের মানুষ। এর প্রভাব পড়েছে দুর্গাপূজায়। সীমিত করা হয়েছে দুর্গোৎসবের অনুষ্ঠান।

করতোয়া নদীর চর পেরিয়ে ভ্যানগাড়িতে দেড় কিলোমিটার পথ বেয়ে যেতে হয় ৭১৫ বছরের ঐতিহ্যবাহী বোদেশ্বরী শক্তিপীঠে।

পাপ মোচনের আশায় বছরের অন্যান্য সময়ও প্রার্থনা করতে যান হাজারো ধর্মবিশ্বাসী মানুষ। গত ২৫ সেপ্টেম্বর করতোয়া নদী পার হয়ে সেখানে পৌঁছাতে গিয়ে নৌকা ডুবে ৭০ মানুষ প্রাণ হারান। নিখোঁজ রয়েছেন আরও তিন জন।  

ওই ঘটনার পর স্বজন হারিয়ে শোকে মুহ্যমান বোদেশ্বরী মন্দিরসহ পুরো জেলাবাসী।

আর তাই এবারের দুর্গোৎসবে উৎসবের আমেজ থেকে বিরত থাকতে চান মন্দিরের ভক্তরা। স্থানীয়রা জানান, প্রয়াতদের স্বর্গলাভের প্রার্থনায় এবারের পূজা কাটাতে চান তারা। যেখানে থাকবে হইহুল্লোড়, থাকবে না আতশবাজি।

এবারের পূজায় ৩ দিনের শোক ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানান পঞ্চগড় পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক। বিপেন চন্দ্র রায়।  

কোনো আনন্দ আয়োজন নয়, শুধু দেবীর আরাধনার মধ্য দিয়েই এবার দুর্গোৎসব হবে বলে জানান, মন্দির কমিটির সভাপতি পৃতিশ কুমার বকশি।

এদিকে পঞ্চগড় পূজা উদযাপন কমিটি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার সঙ্গে সহমত পোষণ করেন পূজা উদযাপন কমিটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক প্রাণতোষ আচার্য শিবু।  

অকালে ঝরে যাওয়া মানুষগুলো যাতে স্বর্গবাসী হন, এমনটাই প্রার্থনা স্বজনদের।

news24bd.tv/ইস্রাফিল