কিশোরের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩
কিশোরের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩

সংগৃহীত ছবি

কিশোরের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩

অনলাইন ডেস্ক

এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধারের ১২ ঘণ্টার মধ্যেই অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার (২ অক্টোবর) বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- কামরুজ্জামান শিমুল ওরফে শ্যামল, ফাহিম ওরফে জিকো ও মো. কাউসার। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহভাজন লিমন ও হানিফ নামে আরও দুজন এখনও পলাতক রয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃত ও পলাতক পাঁচজনই বন্দর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা।

সংবাদ সম্মেলনে জানান, গত ২৮ সেপ্টেম্বর সকালে চালক মো. কায়েস (১৬) তার অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। পরে একই দিন রাতে বাড়িতে না ফেরায় তাকে খুঁজাখুঁজি শুরু করেন পরিবারের সদস্যরা। পরদিন বন্দর থানায় তারা একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

 

এদিকে শনিবার (১ অক্টোবর) বন্দরের কলাগাছিয়ার নরপদী এলাকা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় একটি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় খবর পেয়ে সেখানে পরনের পোশাক দেখে কায়েসকে শনাক্ত করে তার পরিবার। পরে একই দিনই তারা বন্দর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল জানান, মামলার পর ১২ ঘণ্টার মধ্যেই জড়িতদের শনাক্ত করতে সক্ষম হয় পুলিশ। একই সঙ্গে আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে শ্যামল, জিকো, লিমন ও হানিফ পূর্বপরিকল্পিতভাবে কায়েসের অটো ভাড়া করে সাবদি ব্রিজের নিচে যায়। এ সময় সেখানে তারা মদ্যপান করে। পরে ওই জায়গায় কায়েসকে হত্যা করে।

তিনি আরও জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা মরদেহটি ঘটনাস্থলে রেখেই অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে অটোরিকশাটি বিক্রি করতে তাদের সহযোগিতা করেন কাউসার নামে আরেকজন। অভিযুক্ত পাঁচজনের মধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তারের পর বাকি দুজনকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে।

news24bd.tv/কামরুল