নদীতে বালু তোলা নিয়ে দুপক্ষের দ্বন্দ্ব, পৌর মেয়র গুলিবিদ্ধ
নদীতে বালু তোলা নিয়ে দুপক্ষের দ্বন্দ্ব, পৌর মেয়র গুলিবিদ্ধ

সংগৃহীত ছবি

নদীতে বালু তোলা নিয়ে দুপক্ষের দ্বন্দ্ব, পৌর মেয়র গুলিবিদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ফেনী নদীতে বালু তোলা নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন মিরসরাইয়ের বারিয়ারহাট পৌরসভার মেয়ের রেজাউল করিম খোকন। এ সময় তার সঙ্গে থাকা অশোক সেন ও সাহেদ খান নামের আরও দুই সহযোগীও গুলিবিদ্ধ হন।

মিরসরাই উপজেলার ওসমানপুর ইউনিয়নের মুহুরি সেচ প্রকল্প সংলগ্ন ফেনী নদী এলাকায় শুক্রবার (১৪ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থলে থাকা রেজাউল করিমের লোকজন জানান, মিরসরাইয়ের করেরহাট ইউনিয়নে স্থাপিত একটি বিদ্যুৎকেন্দ্রের জায়গা ভরাট করতে ফেনী নদীর মিরসরাই অংশ থেকে ড্রেজার নিয়ে বালু তুলতে যান রেজাউল করিম ও তার কিছু লোকজন।

তখন ফেনী সদর উপজেলার ফাজিলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ফাজিলপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবুল হকের লোকজন তাদের ওপর হামলা করে। এ সময় তারা গুলি করলে মেয়রসহ তিনজন গুলিবিদ্ধ হন।

তবে হামলার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছেন ফাজিলপুর ইউনিয়নের  সভাপতি মজিবুল হক। তিনি বলেন, ‘বারিয়ারহাট পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম আমার ইজারা নেওয়া এলাকায় অবৈধভাবে বালু তুলতে এলে স্থানীয় লোকজন তাড়িয়েছেন বলে শুনেছি।

এ ঘটনায় আমার কোনো যোগসূত্র নাই। আমি বৈধ ইজারাদার হলেও ওই এলাকায় এখনও একবারের জন্যও যাইনি। ’

মিরসরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মিনহাজ উদ্দিন বলেন, রেজাউল করিম খোকনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। তার পেটে এবং শরীরের কয়েকটি স্থানে গুলির চিহ্ন হয়েছেন। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জোরারগঞ্জ থানার ওসি মো. নুর হোসেন মামুন বলেন, ‘বালু তোলার জেরে বারিয়ারহাট পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিমসহ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে বলে শুনেছি। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করছে। বিষয়টি তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।