বিদ্যুৎ-জ্বালানি সংকট কাটবে কবে? 
বিদ্যুৎ-জ্বালানি সংকট কাটবে কবে? 

সংগৃহীত ছবি

বিদ্যুৎ-জ্বালানি সংকট কাটবে কবে? 

অনলাইন ডেস্ক

জ্বালানির অভাবে ব্যাহত হচ্ছে বিদ্যুৎ উৎপাদন, বেড়েছে লোডশেডিং। অনিশ্চয়তায় বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত। কীভাবে, কতদিনে এই সংকট কাটবে তাও নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রীও। ডলার সংকটে সরকার জ্বালানি আমদানির সক্ষমতা হারাবে- এমন শঙ্কা প্রকাশ করেছেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. শামসুল আলম।

 

জানা গেছে, দেশে এখন ক্যাপটিভ ছাড়া বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২২ হাজার ৯শ’ মেগাওয়াট। আর চাহিদা প্রায় ১৪ হাজার মেগাওয়াট। তবে জ্বালানি সংকটে সেটাও যোগান দিতে পারছে না বিদ্যুৎ খাত। দেশীয় প্রাকৃতিক গ্যাসের সরবরাহ কমে যাওয়া এবং আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দাম বেড়ে যাওয়াকে কারণ হিসাবে দেখাচ্ছে সরকার।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের হিসেবে বৃহস্পতিবার সর্বোচ্চ উৎপাদন ছিল ১২ হাজার ৭৬১ মেগাওয়াট। দিন ও রাতের চাহিদার তারতম্য নেমে আসে ৯ হাজার ৩৩৪ মেগাওয়াটে। পিক আওয়ারে ২৮২২ মেগাওয়াট উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে জ্বালানি না পাওয়ায়। শীতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের কথা থাকলেও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী জানান, বছর জুড়ে জ্বালানির ঘাটতি থাকবে।

চলমান বিদ্যুৎ সংকটের জন্য আমদানি নির্ভরতা বাড়ানোকে দুষছেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞ ড. শামসুল আলম।  

দেশীয় গ্যাস উৎপাদন বাড়াতে পারলেই কি স্বস্তিকর পরিস্থিতি তৈরি হবে? আর কতদিনইবা থাকবে এই জ্বালানি সংকট, এমন প্রশ্নের পাওয়া যাচ্ছে না কোনো স্পষ্ট উত্তর।

news24bd.tv/ইস্রাফিল