পাকিস্তানের নাকের ডগা থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নিল ভারত
পাকিস্তানের নাকের ডগা থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নিল ভারত

সংগৃহীত ছবি

পাকিস্তানের নাকের ডগা থেকে ম্যাচ ছিনিয়ে নিল ভারত

অনলাইন ডেস্ক

পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ জিততে শেষ দুই ওভারে ভারতকে ৩২ রান করতে হত। ১৯ তম ওভারে ১৬ রান নিয়ে সমীকরণের অর্ধেক মিলিয়ে ফেলেন বিরাট কোহলি। বাকি অর্ধেকটা মেলাতে গিয়ে আউট হয়ে ফেরেন হার্দিক পান্ডিয়া ও কার্তিক। ফের চাপে পড়ে ভারত।

তবে দলকে চাপ মুক্ত করে জয়ের পথ দেখিয়েছেন কোহলি। নাওয়াজের করা চতুর্থ বল নো হলে বিশাল ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচ সহজ করে ফেলেন কোহলি। স্ট্রাইকে থাকা দিনেশ কার্তিককে আউট করে ফের জয়ের পথ প্রস্তুত করেন নাওয়াজ। তবে শেষ বলে চার মেরে পাকিস্তানের জয়ের পথে পানি ঢেলে দেন অশ্বিন।
ভারত ম্যাচ জিতে ৪ উইকেটে। জয়ের পথে কোহলির ব্যাট থেকে এসেছে ৫৩ বলে ৮২ রান।

পাকিস্তানের দেওয়া ১৬০ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতে ধুঁকেছে ভারত। তবে সময়ের সাথে চাপ সামলে রান তাড়ায় মনোযোগ দেয় রোহিত শর্মার দল।  পেসারদের বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ের পরও শেষ পর্যন্ত ভারত ম্যাচ জিতে নিয়েছে পাকিস্তানের নাকের ডগা থেকে।

এর আগে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই লোকেশ রাহুলের উইকেট হারিয়ে বসে ভারত। এর পর রোহিত শর্মাও ধরতে পারেননি হাল। ৭ বলে ৪ রান করে ফিরেছেন তিনি।

উইকেটে নেমে হাল ধরার চেষ্টা চালান বিরাট কোহলি। তবে অন্য-প্রান্তে সঙ্গ পাননি। ১০ বল থেকে ১৫ রান করে হারিস রউফের বলে আউট হয়ে ফিরেছেন সূর্যকুমার যাদব। এরপর অ্যাক্সার প্যাটেল ২ রান করে রান আউট হয়ে ফিরলে চাপে পড়ে ভারত। পরে হার্দিক পান্ডিয়াকে নিয়ে সেই চাপ সামাল দেন কোহলি।

শুরুতে কিছুটা দেখে শুনে চাপ সামাল দেওয়ার চেষ্টা করলেও পরে সময়ের সাথে সাথে খোলস ছেড়ে বেড়িয়েছেন তিনি। শেষ দিকে রান বেড়ে যাওয়ায় হারের শঙ্কা ঝেঁকে বসে ভারতের। শেষ দুই ওভারে জিততে ভারতের প্রয়োজন পরে ৩২ রান। বাকি কাজ টুকু সেরেছেন কোহলি।

এর আগে চলতি বিশ্বকাপে দর্শক আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকা ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে টসে জিতে পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় ভারত। যেখানে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জিততে ভারতকে ১৬০ রানের লক্ষ্য ছুড়েছে বাবর আজমের দল।

টসে জিতে অধিনায়ক রোহিত শর্মার ফিল্ডিং নেওয়ার সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণ করেন আরশদ্বীপ সিং। দলীয় ১৫ রানের মাথায় পাকিস্তান ব্যাটিংয়ের মূল স্তম্ভ বাবর-রিজওয়ানকে ফেরান তিনি। আরশদ্বীপ সিংয়ের প্রথম বলেই শূন্য রানে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ে আউট হয়ে ফিরেছেন পাকিস্তান অধিনায়ক।

চাপ কাটিয়ে উঠতে ধীর গতির ব্যাট করেও দলকে বিপদ মুক্ত করতে পারেননি আরেক ওপেনার রিজওয়ান। ১২ বলে ৪ রান করে উল্টো চাপ বাড়িয়েছেন।

এরপর উইকেটে এসে হাল ধরেন শান মাসুদ ও ইফতেখার আহমেদ। দুজনে মিলে শুরুর ধাক্কা সামলে বড় রানের ভিত গড়ে দেন পাকিস্তানকে। ৩৪ বলে ৪ ছয় ও ২ চারে অর্ধশতক হাঁকিয়ে শামির বলে আউট হন ইফতেখার। এরপর আবারও ছন্দ পতন ঘটে পাকিস্তান ব্যাটিংয় লাইট আপে। তাসের ঘরের মতো ভেঙে পরেন পাকিস্তানের মিডল অর্ডার। শাদাব খানের পর দ্রুত ফিরেছেন হাইদার আলী, মোহাম্মদ নাওয়াজ ও আসিফ আলী। তবে মাঠে ছিলেন মাসুদ।

শেষ দিকে মাঠে নেমে দ্রুত রান তোলে পাকিস্তানকে শক্ত অবস্থানে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলেনেন শাহিন শাহ আফ্রিদি। বোলার থেকে বনে যান ব্যাটারে। শেষ দিকে রানের ফোয়ারা ছুটান তিনি। তার ৮ বলে ১৬ রানে ভর করে পাকিস্তানের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮উইকেটে ১৫৯ রান। অন্য-প্রান্তে ফিফটির দেখা পেয়েছেন উইকেটে মাটি কামড়ে পড়ে থাকা শান মাসুদ। ৪২ বলে ৫২ রান এসেছে তার ব্যাট থেকে।

ভারতীয় বোলারদের মধ্যে ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া ও আরশদ্বীপ সিং।

news24bd.tv/আমিরুল

এই রকম আরও টপিক