রেমিট্যান্সে ডলারের দাম কমানো হলেও বাড়ানো হয়েছে রপ্তানিতে
রেমিট্যান্সে ডলারের দাম কমানো হলেও বাড়ানো হয়েছে রপ্তানিতে

প্রতীকী ছবি

রেমিট্যান্সে ডলারের দাম কমানো হলেও বাড়ানো হয়েছে রপ্তানিতে

অনলাইন ডেস্ক

প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স দেশে আনার ক্ষেত্রে ডলারের বিনিময়মূল্য আরও ৫০ পয়সা কমানো হয়েছে। অন্যদিকে রপ্তানি আয় নগদায়নে প্রতি ডলারের দাম ৫০ পয়সা বাড়ানো হয়েছে। পহেলা নভেম্বর থেকে নতুন এ দাম কার্যকর করা হবে।

রোববার (২৩ অক্টোবর) ব্যাংকের শীর্ষ নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) ও বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) শীর্ষ নেতাদের এক যৌথ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রাজধানীর মতিঝিলে সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে এ সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, রেমিট্যান্সের ক্ষেত্রে ডলারের সর্বোচ্চ দাম ঠিক করা হয়েছে ১০৭ টাকা। রপ্তানি আয় নগদায়নে প্রতি ডলারের দাম ৫০ পয়সা বাড়িয়ে ৯৯ টাকা ৫০ পয়সা করা হয়েছে। রপ্তানির ক্ষেত্রে নতুন এ দর কার্যকর হবে আগামীকাল থেকেই।

যৌথ সভা শেষে বাফেদার চেয়ারম্যান ও সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফজাল করিম সাংবাদিকদের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, ‘বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে প্রবাসী আয়ে ডলারের দাম ৫০ পয়সা কমানো হয়েছে। আর রপ্তানি বিল নগদায়নে ৫০ পয়সা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। ’

এর আগে গত ৮ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশ ব্যাংক ডলারের দাম বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কারণ সংস্থাটি একের পর এক পদক্ষেপ নেওয়ার পরও ডলারের সংকট কাটাতে পারেনি, বরং ডলারের বাজারে জটিলতা তৈরি হয়। এ কারণে নিজেদের অবস্থান বদল করে ডলারের দাম বাজারের ওপর ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।

তবে ব্যাংকগুলোকে জানানো হয়, প্রবাসী ও রপ্তানি আয়, আমদানি বিল নিষ্পত্তিসহ প্রতিটি লেনদেনে ডলারের দাম হবে ভিন্ন ভিন্ন। সব ব্যাংককে এ দামেই ডলার কেনাবেচা করতে হবে। আর ডলার কেনাবেচায় সর্বোচ্চ মুনাফা করা যাবে এক টাকা। ওই নির্দেশনার ভিত্তিতে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে এবিবি ও বাফেদা ডলারের দাম নির্ধারণ করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় আজ সভায় বসে আবারও ডলারের দাম পুনর্বিবেচনা করা হয়েছে।

news24bd.tv/মামুন