পদ্মায় জেলের জালে ধরা পড়ল ঘড়িয়াল
পদ্মায় জেলের জালে ধরা পড়ল ঘড়িয়াল

সংগৃহীত ছবি

পদ্মায় জেলের জালে ধরা পড়ল ঘড়িয়াল

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় পদ্মা নদীতে জেলের জালে ধরা পড়েছে একটি বিশাল আকৃতির ঘড়িয়াল। পরে আবার নদীতেই অবমুক্ত করা হয়েছে ঘড়িয়ালটিকে। শুক্রবার রাত ৯ টায় পদ্মা নদীর লালন শাহ সেতুর নিচে ঘড়িয়ালটিকে অবমুক্ত করা হয়।

সামাজিক বন বিভাগ কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় বাহিরচর ইউনিয়নের ১২ দাগ গ্রামের পুরাতন ফেরিঘাট লালন শাহ সেতুর নিচে পদ্মা নদীতে আবুল কালাম আজাদ নামের এক জেলের জালে প্রায় ১০ ফুট লম্বা এই ঘড়িয়ালটি ধরা পড়ে।

তবে স্থানীয়রা এটিকে কুমির মনে করেন। খবর ছড়িয়ে পড়লে ঘড়িয়াল দেখতে উৎসুক মানুষের ঢল নামে।

বাহিরচর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আসাদুজ্জামান কচি জানান, পদ্মার নদীতে ১২ দাগ গ্রামের মৎস্যজীবী আবুল কালাম আজাদ, সজল,আশরাফুল, হোসেন আলী প্রতিদিনের মতো পদ্মা নদীতে মাছ ধরার জন্য জাল পাতে। শুক্রবার সন্ধ্যায় জাল তোলার সময় জেলেরা দেখতে পায় প্রায় ১০ ফুট লম্বা একটি কুমির জালে আটকে আছে।

এসময় অন্যান্য জেলেদের সহযোগিতায় কুমিরটি ধরে নদীর পাড়ে নিয়ে আসে। পরে বন বিভাগে খবর দেওয়া হয়। বনবিভাগের কর্মকর্তা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রাত ৯ টায় পদ্মা নদীতে কুমিরটিকে  অবমুক্ত করেন।

জেলে মো. সজল বলেন, পদ্মা নদীর লালনশাহ সেতুর নিচ থেকে মুন্সি পাড়ার সাগর মুন্সির বাড়ি পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার জাল ফেলি। কোন একসময় কুমিরটি জালে আটকে পড়ে। সন্ধ্যায় জাল তোলার সময় কুমিরটি জালে আটকে পড়া অবস্থায় দেখতে পাই। এসময় ভয় পেলেও কয়েক ঘণ্টা পানিতে খেলিয়ে ক্লান্ত করে তাকে ধরি। কুমিরের মুখ বস্তা দিয় মুড়িয়ে নৌকায় দড়ি দিয়ে বেধে নদীর পাড়ে নিয়ে আসি।

ভেড়ামারা বন বিভাগের কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম বলেন, এটি কুমির নয় ঘড়িয়াল। এরা মূলত মাছ খায়। সুস্থ অবস্থায় অবমুক্ত করতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে শুক্রবার রাত ৯ টায় লালনশাহ সেতুর নিচে পদ্মা নদীতে অবমুক্ত করা হয়েছে। তিনি বলেন জীব-বৈচিত্র্য ঠিক থাকায় এবং পদ্মা ও গড়াই নদীর পানির মানমাত্রা সঠিক থাকায় এখানে ঘড়িয়ালের বাস আছে।

news24bd.tv/আমিরুল

এই রকম আরও টপিক