খেরসনে ইউক্রেনীয় সেনাদের বড় অগ্রগতি
খেরসনে ইউক্রেনীয় সেনাদের বড় অগ্রগতি

ছবি: গেটি ইমেজ

খেরসনে ইউক্রেনীয় সেনাদের বড় অগ্রগতি

অনলাইন ডেস্ক

ইউক্রেনের দক্ষিণাঞ্চলের খেরসনে ইউক্রেনীয় বাহিনীর আরও অগ্রগতি হয়েছে। শহরটির উত্তরের অন্যতম মূল শহর স্নিহুরিভকা নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার দাবি করেছে ইউক্রেনীয় বাহিনী। এমনকি ইউক্রেনের সেনারা সাত কিলোমিটার সামনের দিকে এগিয়েছে বলে জানিয়েছে। খেরসন থেকে রুশ সৈন্য প্রত্যাহার শুরুর পরেই এ খবর এলো।

খবর বিবিসির।

প্রতিবেদনে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি জানায়, খেরসন শহর থেকে সেনা সদস্যদের সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। এরই মধ্যে শহরটির বিভিন্ন স্থান পুনরুদ্ধারের দাবি করছে ইউক্রেনীয় বাহিনী।

ইউক্রেনীয় বাহিনী বলছে, তারা উত্তর খেরসনের মূল শহর স্নিহুরিভকা পুনরুদ্ধার করেছে।

এ ছাড়া কিছু জায়গায় সাত কিলোমিটার পর্যন্ত ভূখণ্ডের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।

অন্যদিকে রাশিয়া বলছে, তারা খেরসন থেকে সৈন্য প্রত্যাহার শুরু করেছে ও এটি শেষ করতে সপ্তাহখানেক সময় লাগবে।

বেশ কিছুদিন ধরেই ইউক্রেনের খেরসন শহরের দিকে ক্রমশ এগোচ্ছে কিয়েভ বাহিনী। যুদ্ধ শুরুর কিছু দিন পরেই শহরটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছিল রুশ বাহিনী। এমতাবস্থায় গত বুধবার সেখান থেকে সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। এটিকে মস্কোর জন্য একটি বড় ধাক্কা হিসেবে দেখা হচ্ছে। তবে ইউক্রেনীয় কর্মকর্তাদের সন্দেহ, সৈন্য ফেরত নেওয়া রাশিয়ার একটি ফাঁদ।

বিবিসি বলছে, খেরসন থেকে ব্যাপক আকারে রুশ সেনা প্রত্যাহারের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

রুশ সেনা প্রত্যাহার নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছে ইউক্রেনও। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার ইউক্রেনের সেনাপ্রধান ভ্যালেরি জালুঝনি জানিয়েছেন, সেনা প্রত্যাহারের বিষয়ে তিনি নিশ্চিত নন। তবে নিজের সেনাবাহিনীর অগ্রগতির কথা জানিয়েছেন তিনি।

ভ্যালেরি জালুঝনি বলেন, ‘আমাদের দুটি টিম নিপার নদীর পশ্চিম পাশে অগ্রসর হয়েছে। সেখানকার ১২টি বসতির নিয়ন্ত্রণ নেওয়া হয়েছে। ’

‘গত দিনে আমাদের সেনারা সাত কিলোমিটার সামনের দিকে এগিয়েছেন। নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার এই প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়া হবে,’ যোগ করেন তিনি।

চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা চালায় রাশিয়া। পরে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ বাঁধে। হামলার শুরুতেই ইউক্রেনের একমাত্র শহর হিসেবে খেরসন দখলে নেয় রাশিয়া। গত সেপ্টেম্বরে ইউক্রেনে নিজেদের দখলে থাকা চার অঞ্চলকে রাশিয়ার সঙ্গে অঙ্গীভূত করার ঘোষণা দেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ওই অঞ্চলগুলোর একটি ছিল খেরসন।

news24bd.tv/মামুন