ফিফার হুমকির মুখে পিছু হটল ‘সমকামী সমর্থক’রা
ফিফার হুমকির মুখে পিছু হটল ‘সমকামী সমর্থক’রা

ফিফার হুমকির মুখে পিছু হটল ‘সমকামী সমর্থক’রা

অনলাইন ডেস্ক

ফিফার হুমকির মুখে অবশেষে পিছু হটতে বাধ্য হলো সমকামিতাকে সমর্থন দেওয়া ইউরোপের সাত ফুটবল দল। কাতারের বিধিনিষেধের পরও সমকামিতাকে সমর্থন জানাতে বিশ্বকাপে ‘ওয়ান লাভ আর্মব্যান্ড’ পরে মাঠে নামার কথা ছিল হ্যারি কেইন-ম্যানুয়েল নয়্যারদের। যা সমকামিতাকে সমর্থন জানায়। তবে ফিফা সম্প্রতি জানায়, আইন ভঙ্গ করে মাঠে এ আর্মব্যান্ড পরে মাঠে নামলেই দেখতে হবে হলুদ কার্ড।

ফুটবলের সর্বোচ্চ অভিভাবক সংস্থার এমন হুমকির মুখেই আর্মব্যান্ড পরার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে দলগুলো।

ধর্মীয়ভাবে বরাবরই কঠোর অবস্থানে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার। সমকামীদের জন্য কঠোর শাস্তির বিধান রেখেছে দেশটি। দেশটির এই আইন জানা সত্ত্বেও ইংল্যান্ড, জার্মানি, ওয়েলস, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস এবং সুইজারল্যান্ড জানায়, তাদের অধিনায়ককে বিশেষ ওই আর্মব্যান্ড পরেই মাঠে নামবে।

তবে ফিফা জানায়, এমন কাজ করলে ম্যাচ শুরুর আগে আর্মব্যান্ড পরা অধিনায়ককে দেখতে হবে হলুদ কার্ড। এমন শাস্তি এড়াতেই আজ সোমবার নিজেদের মত পাল্টেছে দেশগুলো।

ফিফার হুমকিতে নিজেদের অস্বস্তি এবং হতাশা প্রকাশ করে সাতটি দেশ যৌথ বিবৃতিতে জানায়, ‘ফিফা খুব স্পষ্ট করে বলেছে যে, আমাদের খেলোয়াড়রা মাঠে আর্মব্যান্ড পরে নামলে শাস্তির মুখে পড়তে হবে। জাতীয় ফেডারেশন হিসেবে, আমরা আমাদের খেলোয়াড়দের এমন কোনো নিষেধাজ্ঞার মুখে ফেলতে পারি না, যেখানে তারা বুকিংসহ (হলুদ কার্ড) ক্রীড়া নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হতে পারে। তাই আমরা অধিনায়কদের ফিফা বিশ্বকাপের ম্যাচগুলোতে আর্মব্যান্ড পরতে বারণ করেছি। ’ 

এর আগে, সমকামীদের নিয়ে কাতারের কড়াকড়ি আইনের প্রতিবাদে সমকামী অধিকার রক্ষা সংস্থাগুলো প্রতিবাদ জানায়। সেই প্রতিবাদে যোগ দেয় বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ। তালিকায় ছিল ইংল্যান্ড, নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক, বেলজিয়াম, জার্মানি, সুইডেন, নরওয়ে, সুইজারল্যান্ড ও ওয়েলস। প্রতিবাদকারী দেশগুলোর অধিনায়কেরা ঘোষণা দিয়েছেন, বিশ্বকাপের ম্যাচে তারা এই আর্মব্যান্ড পরে নামবেন।

সরাসরি সমকামিতা-বিরোধী আইনের বিরোধিতা করার জন্য নয়, সমকামী প্রেমকে সমর্থন করার জন্যই তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু ফিফা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, যে দেশে বিশ্বকাপ হচ্ছে সেই দেশের আইন, সংস্কৃতি মেনে চলতে হবে। এরপরই ফিফা ঘোষণা দেয়, নিয়ম অনুযায়ী কোনো অধিনায়ক ওই বিশেষ আর্মব্যান্ড পরতে পারবেন না। তার বদলে, ঐক্য ও সমানাধিকারের বার্তা দিতে বিশেষ আর্মব্যান্ড নিয়ে এসেছে ফিফা। প্রতি রাউন্ডে সেই আর্মব্যান্ডের ‘স্লোগান’ বদলে যাবে। কিন্তু তার বাইরে কিছু পরা যাবে না।

news24bd.tv/সাব্বির