ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি, পুলিশ কনস্টেবলের ১৭ বছরের কারাদণ্ড
ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি, পুলিশ কনস্টেবলের ১৭ বছরের কারাদণ্ড

সংগৃহীত ছবি

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি, পুলিশ কনস্টেবলের ১৭ বছরের কারাদণ্ড

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে পুলিশে চাকরি নেওয়ার দায়ে এক পুলিশ কনস্টেবলকে ১৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ২ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।  সোমবার (২১ নভেম্বর) দুপুরে নোয়াখালী বিশেষ জজ আদালতের বিচারক এ এন এম মোর্শেদ খান এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডিত কনস্টেবলের নাম মো. আরিফুল ইসলাম (৩২)।

তিনি চাটখিল উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামের নুরুল হকের ছেলে।  

নোয়াখালী জেলা দুদকের পিপি অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দুপুরে মামলার শুনানি শেষে বিচারক অভিযুক্ত আসামিকে ৫ ধারায় মোট ১৭ বছরের কারাদণ্ড ও ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেন। সব সাজা এক সঙ্গে কার্যকর হওয়ায় আসামিকে ৫ বছর সাজা খাটতে হবে। তবে দণ্ডপ্রাপ্ত আরিফুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন।

মামলার বিবরণীতে জানা যায়, ২০১২ সালে পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগের সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি নিজের বাবাকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করে ভুয়া সনদে চাকরি নেন। রাষ্ট্রীয়ভাবে সব সুযোগ-সুবিধাও ভোগ করেন তিনি। নিয়োগের কিছু দিন পর বিষয়টি জানাজানি হয়। তদন্তে সনদটি ভুয়া প্রমাণিত হয়। এরপর ২০১৩ সালে পুলিশ লাইনের তৎকালীন রিজার্ভ অফিসার উপপরিদর্শক (এসআই) শরীফুল ইসলাম বাদী হয়ে চাটখিল থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পায় দুদক। তদন্ত শেষে পুলিশ কনস্টেবল আরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।