ধর্ষণের পর এবার মানহানির মামলা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে
ধর্ষণের পর এবার মানহানির মামলা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে

সংগৃহীত ছবি

ধর্ষণের পর এবার মানহানির মামলা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে

অনলাইন ডেস্ক

ধর্ষণের অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন মার্কিন লেখিকা ই জিন ক্যারল। সম্প্রতি কার্যকর হওয়া আইন ‘অ্যাডাল্ট সারভাইভারস অ্যাক্টের’ আওতায় এ মামলা করেন তিনি। সেই সঙ্গে মানহানির অভিযোগে আরও একটি মামলা করেছেন ক্যারোল।

২০১৯ সালে ক্যারল প্রথম ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ধর্ষণের এই অভিযোগ আনেন।

তিনি অভিযোগ করেন, ১৯৯০ দশকে একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের ড্রেসিং রুমে তাকে ধর্ষণ করেন ট্রাম্প। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন ট্রাম্প। তিনি তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ট্রুথ সোশ্যালে বলেন, তিনি ক্যারোলকে কখনো দেখেননি। এটি ক্যারোলের ‘কল্পনা’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।
এছাড়া তিনি ক্যারোলকে ‘প্রতারক’ ও ‘মিথ্যা’ বলে উল্লেখ করেন। ট্রাম্পের এই মন্তব্যের জন্য তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলাও করেছেন ক্যারোল।


দেশটির আগের আইনের অধীনে যৌন হয়রানির ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীকে ১ বছরের মধ্যে অভিযোগ দায়ের করতে হতো। এই সীমাবদ্ধতা কাটাতে ‘অ্যাডাল্ট সারভাইভারস অ্যাক্ট’ নামে নতুন একটি আইন পাশ করা হয়। এর মাধ্যমে ১৮ বছরের বেশি বয়সের ভুক্তভোগীরা তাদের সাথে হওয়া যৌন নির্যাতনের জন্য মামলা দায়ের করতে পারবেন। নতুন আইনে সময়ের কোন সীমাবদ্ধতা নেই।  

মার্কিন লেখিকা ই জিন ক্যারল এর আগেও ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেছেন তবে আইনের সীমাবদ্ধতার জন্য মামলা করতে পারেননি। নতুন আইন কার্যকর হওয়ার সাথে সাথেই ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলেন তিনি।

ক্যারলের অ্যাটর্নি রবার্টা কাপলান এক বিবৃতিতে বলেন, যৌন নির্যাতনের জন্য ট্রাম্পকে দায়বদ্ধ করার উদ্দেশ্যে বৃহস্পতিবার নতুন মামলাটি দায়ের করা হয়।

অন্যদিকে ট্রাম্পের আইনজীবী আলিনা হাব্বা গণমাধ্যমকে বলেন, এই আইনের অপব্যবহারের উদ্দেশ্যে করা এই মামলার ফলে প্রকৃত ভুক্তভোগীদের বিশ্বাসযোগ্যতাকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলবে।

news24bd.tv/আজিজ