শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ২২ মিনিট আগে

যোগাসন

সর্বাঙ্গাসনের উপকারিতা

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

সর্বাঙ্গাসনের উপকারিতা

শরীর ও মনের সংযোগ স্থাপন ও ভারসাম্য রক্ষা করে আত্মার উন্নতি ও শারীরিক সক্ষমতা বৃদ্ধি ঘটায় যোগাসন। কমায় মানসিক চাপ। নানা রোগকে দূরে সরিয়ে রাখে। হাজারো যোগাসনের মধ্যে একটি সর্বাঙ্গাসন। সর্ব অঙ্গের জন্য উপকারী বলে এমন নামকরণ হয়েছে। যারা সবসময় অন্য আসন করতে পারেন না তাদের পক্ষে এই আসনটি অবশ্যই করা উচিত। এতে অন্যান্য আসনের উপকারিতাও পাওয়া য়ায়। যাঁরা নিয়মিত আসন করেন তাঁদের কাছে এই আসনটি অতি প্রিয়।

যেভাবে করবেন

চিৎ হয়ে শুয়ে পড়ুন। দু’হাত দু’পাশে রাখুন। এবার শ্বাস নিতে নিতে দু’পা উপরে তুলুন। এবার ধীরে ধীরে শ্বাস ছাড়ুন। শ্বাস-প্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখুন। দু’হাতের করতল দিয়ে কোমরের উপরের অংশ ধরুন যেন পা দুটি সোজা থাকে। চিবুক ঠেকে থাকবে বুকের সঙ্গে। এভাবে এক মিনিট থেকে সর্বাধিক ৫ মিনিট পর্যন্ত থাকবেন। ধীরে ধীরে সময় বাড়াতে হবে। ৪/৫বার আসনটি করতে হবে। দু’বেলা আসনটি করতে পারলে ভাল হয়।

উপকারিতা

১. বদহজম, অজীর্ণ, কোষ্ঠকাঠিন্য সেরে যায়।

২. পেটের ও অন্ত্রের গোলযোগ দূর হয়।

৩. নারীর গর্ভাশয়ের রোগ নিরাময় হয়। গর্ভাশয় সবল হয়।

৪. গলিত কুষ্ঠরোগের পক্ষে পরম উপকারী।

৫. চুলকানি, জ্বালাপোড়া ও পদতলের রোগ সেরে যায়।

৬. মূত্রাশয়ের সকল রোগ নিরাময় হয়।

৭. পাচনতন্ত্র ও নাড়ীতন্ত্রের পক্ষে উপকারী।

৮. মেরুদণ্ড নমনীয় হয়। জড়তা ও দুর্বলতা সেরে যায়।

৯. শ্বাসকষ্ট, বুক ধরফড়ানি, ব্রঙ্কাইটিস্, টনসিলাইটিস বিশেষ করে থাইরয়েডের বিশেষ উপকার হয়।

১০. শরীরকে সুস্থ সবল রাখে। মনে স্ফুর্তি আসে।

১১. অকাল বার্ধক্য রোধ করে এবং যৌবন দীর্ঘস্থায়ী করে ।

মন্তব্য