ইবি ছাত্রলীগের বিজ্ঞপ্তি সম্পাদনা করে ছাত্রীর নাম, সমালোচনার ঝড়
ইবি ছাত্রলীগের বিজ্ঞপ্তি সম্পাদনা করে ছাত্রীর নাম, সমালোচনার ঝড়

ছাত্রলীগের নতুন (বায়ে) ও পুরনো (ডানে) বিজ্ঞপ্তি।

ইবি ছাত্রলীগের বিজ্ঞপ্তি সম্পাদনা করে ছাত্রীর নাম, সমালোচনার ঝড়

ইবি প্রতিনিধি

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগ কমিটিতে নতুন সহ-সভাপতি পদ সংযুক্ত করা হয়েছে। নতুন এই সহ-সভাপতি হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের রেহেনা আক্তার ঝুমা। তবে অভিযোগ উঠেছে, পুরনো প্যাড সম্পাদনা করে এই বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে। এই প্রেস রিলিজটি অফিসিয়াল নয় বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় দফতর সেল।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) রাত ১টায় ৪৪ মিনিটে ঝুমা ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে তার নাম সংযুক্ত প্রেস বিজ্ঞপ্তিটি শেয়ার করেন। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে দলীয় নেতাকর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে নানা সমালোচনা ও বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

জানা যায়, গত ৩১ জুলাই ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ২৪ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এ কমিটি ঘোষণার প্রায় চার মাস পরে একই বিজ্ঞপ্তি সম্পাদনা করে নতুন এই পদ সংযুক্ত করা হয়েছে।

ঝুমা তার নাম সংবলিত বিজ্ঞপ্তিটি ফেসবুকে পোস্ট করে লেখেন, আমাকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত করায় সংগ্রামী সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ভাই ও বিপ্লবী সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য দাদাকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

পুরনো প্যাডে নতুন সহ-সভাপতি পদায়নের বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংগঠনটির একাধিক নেতাকর্মী। এ বিষয়ে রাকিব হাসান নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করে লেখেন, ৪ মাস পর কমিটি এডিটিং করে রেহেনা আক্তারকে সহ-সভাপতি প্রচার করা হচ্ছে অথচ কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কোনো জরুরি প্রেস বিজ্ঞপ্তি ছাড়া। সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো এই এডিটিং সহ-সভাপতির বৈধতা দিচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সমাজসেবা সম্পাদক শেখ স্বাধীন মো. শাহেদ।

ঝুমাকে সহ-সভাপতি হিসেবে পদায়নের সত্যতা নিশ্চিত করে কেন্দ্রীয় সমাজসেবা সম্পাদক ও ইবি শাখার তত্ত্বাবধায়ক শেখ স্বাধীন শাহেদ বলেন, ‘কেন্দ্রীয় উপ-দপ্তর সম্পাদক সজীব নাথ পরশুদিন আমাকে প্রেসটা দিয়ে বলেছিল যে, আপনার এখানে একটা মেয়েকে ইনক্লুড করা হয়েছে। তবে আমি যতটুকু জানি, যখন আমরা সিভি নিয়েছিলাম তখন শুধুমাত্র এই মেয়েটাই সিভি দিয়েছিল। পরবর্তীতে কমিটি হওয়ার পরে আমি বিষয়টি কেন্দ্রীয় প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারিকে জানিয়েছিলাম। যদি সিভির বাইরে থেকে নাম নেওয়া হয় তাহলে সিভি কার্যক্রম কেনো? তখন তারা বলেছিল, এটা একটা মিস্টেক হয়ে গেছে। ’

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত বলেন, ‘চার মাস আগে কমিটি হয়েছে। এখন নতুন করে পদ দেওয়ায় অন্যান্য নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ ও ক্ষোভ কাজ করেছে। গত পরশু দিন সাধারণ সম্পাদক (নাসিম আহমেদ জয়) আমাকে এই প্রেসটি দেয়। কিন্তু প্রেসটি কোথা থেকে এসেছে এ সম্পর্কে আমি অবগত না। তবে বিষয়টি খারাপ। ’

বিষয়টি নিয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয়ের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সহ-সভাপতি পদায়নের বিষয়ে দফতর সেলের অবগতির কথা স্বীকার করে কেন্দ্রীয় উপ-দপ্তর সম্পাদক সজীব নাথ বলেন, ‘এ বিষয়ে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়া আমাদের কথা বলার সুযোগ নেই। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে আমরা এসব কিছু পোস্ট করিনি। ’

কেন্দ্রীয় সমাজসেবা সম্পাদক স্বাধীন শাহেদের কাছে দুইদিন আগে বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করে বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের ওই মেয়েকে অনেক আগেই এই পোস্টে রাখার কথা ছিল। কিন্তু হয়তোবা কোনো ভুলের কারণে তারা সেটা করেনি। কিন্তু আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অফিসিয়াল যে দায়িত্ব পালন করছি সেখান থেকে আমরা এ ধরনের কোনো প্রেস ছাড়িনি। আর উনি (স্বাধীন শাহেদ) দায়িত্ব প্রাপ্ত, হয়তোবা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের কাছ থেকে বিষয়টি অবগত হয়েই বলেছেন। ’

news24bd.tv/FA