বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারি: তিন মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ 
বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারি: তিন মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ 

সংগৃহীত ছবি

বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারি: তিন মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ 

অনলাইন ডেস্ক

বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি ও অর্থ আত্মসাতের মামলায় তিন মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন কোনো ধরনের ব্যর্থতা ছাড়াই যথাযথ আদালতে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। প্রতিবেদন দাখিলের পর উচ্চ আদালতের রেজিস্টার বরাবর তা হলফনামা আকারে দাখিল করার নির্দেশা দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) তিনটি মামলায় বেসিক ব্যাংকের জিএম মোহম্মদ আলীর জামিন প্রশ্নে রুল খারিজ করে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।  

আদালত বলেন, ২০১৫ সালে এই মামলাগুলো দাখিল করা হয়।

কিন্তু তদন্ত কাজ আজও শেষ করতে পারেনি দুদক। এ দীর্ঘ সময়ের কারণে মামলার আলামত নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তদন্ত সঠিক না হলে পৃথিবীর অনেক দেশে তদন্ত কর্মকর্তা পদত্যাগ করেন। দুদককে সঠিকভাবে তার তদন্ত কাজ শেষ করতে হবে উল্লেখ করে অসন্তোষ প্রকাশ করেন আদালত।
 

এ ঘটনায় করা ৫৬ মামলার মধ্যে ১২ মামলার আসামি ব্যাংকটির সাবেক জিএম মোহাম্মদ আলী। এর মধ্যে তিন মামলায় জামিন চেয়েছেন তিনি। পরে জামিন শুনানিতে গত ৮ নভেম্বর হালনাগাদ তথ্য চেয়েছিলেন হাইকোর্ট। সে অনুসারে প্রতিবেদন দাখিল করে দুদক।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বেসিক ব্যাংকের বিভিন্ন শাখা থেকে প্রায় ২০৭৭ কোটি ৩৪ লাখ ২ হাজার ৯৯১ টাকা যা সুদসহ ২৫৯০ কোটি ৪৯ লাখ ৯১ হাজার ৪৫৩ টাকা আত্মসাতের দায়ে দুদক প্রাথমিক অনুসন্ধান শেষে মোট ৫৬টি মামলা দায়ের করে।

এসব মামলায় ৮২ জন ঋণ গ্রহীতা ছাড়াও বেসিক ব্যাংকের তৎকালীন ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফকরুল ইসলাম, ডিএমডি ফজলুস সোবহান, সাবেক ডিএমডি শেখ মঞ্জুর মোরশেদ, জিএম এ. মোনায়েম খান, জিএম মোহাম্মদ আলী ওরফে মোহাম্মদ আলী চৌধুরীসহ ২৭ কর্মকর্তাকে আসামি করা হয়।  

প্রতিবেদনে বলা হয়, মামলাগুলো দীর্ঘদিন যাবৎ তদন্তাধীন আছে। মামলার তদন্ত দীর্ঘায়িত হওয়ার অন্যতম একটি কারণ আত্মসাৎ করা অর্থ সম্পূর্ণরূপে নগদে উত্তোলনের মাধ্যমে টাকার অবস্থান গোপন করা হয়েছে। মামলায় গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীদের শনাক্তকরণ ও তাদের জবানবন্দি গ্রহণ কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। মোট ৫৬টি মামলায় আত্মসাৎ করা অর্থের মধ্যে ১১৫ দশমিক ৭৮ কোটি টাকা উদ্ধার বা ব্যাংকে জমা করা হয়েছে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তদন্ত সঠিক না হলে পৃথিবীর অনেক দেশে তদন্ত কর্মকর্তা পদত্যাগ করেন। দুদক কে সঠিকভাবে তার তদন্ত কাজ শেষ করতে হবে।

news24bd.tv/ইস্রাফিল