ইরানকে হটিয়ে শেষ ষোলোতে যুক্তরাষ্ট্র
ইরানকে হটিয়ে শেষ ষোলোতে যুক্তরাষ্ট্র

সংগৃহীত ছবি

ইরানকে হটিয়ে শেষ ষোলোতে যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

বিতর্ক দূরে ঠেলে কাতার বিশ্বকাপে পা রাখে ইরান। ওয়েলসকে ২-০ গোলে হারিয়ে শেষ ষোলোতে খেলার সম্ভাবনা ঝেঁকে বসে ইরানের। শেষ ম্যাচে সমীকরণ দ্বারায় যুক্তরাষ্ট্রকে রুখে দেওয়া। জয় কিংবা ড্র’করলেই সুযোগ ছিল পরবর্তী রাউন্ডে খেলার।

তবে শেষ পর্যন্ত হয়নি সেটি। প্রথমবারের মতো শেষ ষোলোর খুব কাছে গিয়েও অবশেষে হারতে হয়েছে ইরানকে। বিপরীতে ইরানকে ১-০গোলে হারিয়ে গ্রুপ বি থেকে ইংল্যান্ডের সাথে শেষ ষোলোতে পা রাখে যুক্তরাষ্ট্র।

শুরুটা ভালোই করেছিল ইরান।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের কঠিন বাধা টপকানো যাচ্ছিল না। উল্টো সামলাতে হচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্রের পাল্টা আক্রমণ। তবে শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রকে সামলানো যায়নি। প্রথমার্ধের শেষ দিকে ক্রিস্টিয়ান পুলসিকের গোলে এগিয়ে যায় যুক্তরাষ্ট্র। সেই গোলটাই শেষমেশ গড়ে দেয় পার্থক্য। আর তাতে ইরানকে কাঁদিয়ে বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে উঠে যুক্তরাষ্ট্র।

দুর্দান্ত এ জয়ে আট বছর আর পাঁচ ম্যাচ পর বিশ্বকাপে ম্যাচ জয়ের স্বাদ পেল যুক্তরাষ্ট্র। আর তাতেই দ্বিতীয় রাউন্ডে পা রাখা হয়েছে তাদের। শেষ ষোলোয় ‘এ’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি হবে তারা।

জয় কিংবা ড্র এমন সমীকরণ নিয়ে মাঠে নেমে শুরু থেকেই গোল করতে হন্নে হয়ে চেষ্টা চালিয়েছে ইরান। ম্যাচের প্রথম দশ মিনিট দেখে অন্তত সেটিই মনে হয়েছে। তবে ধীরে ধীরে নিজেদের শুধরে আক্রমণে আসে যুক্তরাষ্ট্র। একাদশ মিনিটে প্রথম ভালো সুযোগ পায় যুক্তরাষ্ট্র। তবে পুলিসিকের সহজেই ঠেকিয়ে দেন ইরান গোলরক্ষক। ২৮তম মিনিটে আরও একটি সুযোগ হারায় আমেরিকানরা।

তবে এরপর আর যুক্তরাষ্ট্রকে হতাশ করেনি পুলসিক। ৩৮তম মিনিটে সমর্থকদের উদযাপনের মুহূর্ত এনে দেন পুলসিক। ওয়েস্টন ম্যাককেনির ক্রসে হেডে বল ছয় গজ বক্সে বাড়ান সের্জিনো দেস্ত, আর দারুণ ভলিতে জালে পাঠান পুলসিক।

প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে আবারও বল জালে পাঠায় যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু অফসাইডের কারণে বাতিল করা হয় সে গোল।

প্রথমার্ধে রক্ষণে সময় ব্যয় করা ইরান দ্বিতীয়ার্ধে মনোযোগ দেয় আক্রমণে। ৫২তম মিনিটে একটি সুযোগ হাতছাড়া করে দলটি। তবে আরব দেশটির এর চেয়েও ভালো সুযোগ আসে অতিরিক্ত সময়ে। মোর্তেজা পুরালিগাঞ্জির ডাইভিং হেড লক্ষ্যে থাকেনি। একেবারে শেষ মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রের ডিফেন্ডার ক্যামেরন কার্টার-ভিকার্সের চ্যালেঞ্জে ডি-বক্সে মেহদি তারেমি পড়ে গেলে পেনাল্টির আবেদন করে ইরান। কিন্তু সাড়া দেননি রেফারি। আর ওখানেই শেষ হয় ইরানের বিশ্বকাপ যাত্রা। শেষ পর্যন্ত চোখের জল সঙ্গী করে মাঠ ছাড়তে হয়েছে ইরানের ফুটবলারদের।

news24bd.tv/আমিরুল