পশ্চিমাদের কোভিড ভ্যাকসিন গ্রহণে অনিচ্ছুক চীন: যুক্তরাষ্ট্র
পশ্চিমাদের কোভিড ভ্যাকসিন গ্রহণে অনিচ্ছুক চীন: যুক্তরাষ্ট্র

সংগৃহীত ছবি

পশ্চিমাদের কোভিড ভ্যাকসিন গ্রহণে অনিচ্ছুক চীন: যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

কোভিড-১৯ নিয়ে চীন যে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছে তা সত্ত্বেও পশ্চিমাদের প্রস্তুতকৃত ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে রাজি নয় চীনা নেতা শি জিনপিং। শনিবার ক্যালিফোর্নিয়ায়  রিগান ন্যাশনাল ডিফেন্স ফোরামে বক্তব্যকালে এমন মন্তব্য করেছেন মার্কিন জাতীয় গোয়েন্দা বিভাগের পরিচালক এভ্রিল হেইনস। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

তিনি বলেন, ‘ভাইরাসের সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রভাব সত্ত্বেও শি পশ্চিমাদের থেকে একটি ভালো ভ্যাকসিন নিতে অনিচ্ছুক।

তারা নিজেদের তৈরি ভ্যাকসিনের ওপর নির্ভর করছে, যা ওমিক্রনের বিরুদ্ধে প্রায় অকার্যকর। ’

মহামারি করোনাভাইরাসের নতুন ঢেউ দেখা দিয়েছে চীনে। জিরো কোভিড নীতি অনুসরণ করেও কমানো যাচ্ছে না সংক্রমণের সংখ্যা। ইতোমধ্যে করোনার বিধিনিষেধ বন্ধে রাস্তায় নামে দেশটির জনগণ।

এমতাবস্থায় বিক্ষোভকারীদের কাছে কিছুটা নত স্বীকার করেছে শি জিনপিং প্রশাসন।

করোনা ভাইরাসের টিকা আবিষ্কারের প্রথম কাতারেই রয়েছে চীন। বিপুল পরিমাণে ভ্যাকসিন বিক্রিও করেছে তারা। তবে নিজেদের দেশের জনগণকে সম্পূর্ণভাবে ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে পারেনি এশিয়ার বৃহৎ দেশটি।

বিক্ষোভ নিয়ে হেইনস বলেন, ‘প্রতিবাদ রুখতে আগের মতোন কাজ করছেন শি। যেমনটা এর আগেও করে এসেছে তারা। ’

‘যে বিক্ষোভ হয়েছে তাতে দেশটির নীতি নির্ধারকে পরিবর্তন হবে তেমনটা দেখা যাচ্ছে না। এটি কীভাবে বিকশিত হয় তা শি’র অবস্থানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হবে,’ যোগ করেন তিনি।

গার্ডিয়ান বলছে, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের পর গত সপ্তাহে চীনের দক্ষিণের শহর গুয়াংঝু ও দক্ষিণ-পশ্চিমের চংকিংয়ে কোভিড বিধিনিষেধ শিথিল করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। আর শনিবার শেনচেন শহর কর্তৃপক্ষ গণপরিবহন ব্যবহার ও পার্কে প্রবেশের ক্ষেত্রে কোভিড ভ্যাকসিনের সার্টিফিকেট দেখাতে হবে না বলে জানিয়েছে। এর আগে চেংদু, তিয়ানজিনসহ আরও বেশ কয়েকটি শহরেও একই পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

রাজধানী বেইজিংয়ের অনেকগুলো অস্থায়ী করোনার টেস্টের বুথ বন্ধ করা হয়েছে। এ ছাড়া সুপার মার্কেটগুলোতে প্রবেশে করোনার সার্টিফিকেট লাগবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। বয়স্কদের ভ্যাকসিন দেওয়ার পরিকল্পনাও ঘোষণা করেছে শি প্রশাসন।

news24bd.tv/মামুন

এই রকম আরও টপিক