গাজীপুরে গড়ে উঠেছে এক পায়ে ফুটবল টিম
গাজীপুরে গড়ে উঠেছে এক পায়ে ফুটবল টিম

গাজীপুরে গড়ে উঠেছে এক পায়ে ফুটবল টিম

মো. জাহাঙ্গীর আলম

কারো নেই হাত, কারো নেই পা। কেউ সড়ক দুর্ঘটনা কিংবা জন্মগতভাবেই শারীরিকভাবে অপূর্ণ। তবে মনের বাসনাকে পুঁজি করে প্রত্যেকেই ঘুরে দাঁড়াতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা যেন আর দমিয়ে রাখতে পারছে না তাদের।

তারা আজ প্রত্যেকেই ফুটবলার হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলছেন। ক্র্যাচে ভর করে তাদের স্বপ্ন আজ ডানা মেলার অপেক্ষায়।

গাজীপুরে এমন এক এমপিউটি (একপায়ের ফুটবল) টিম গড়ে উঠেছে। ক্র্যাচে ভর করে তাদের ফুটবল নৈপুণ্য যেন তৃণমূলে সৃষ্টি করছে শিহরণ।

দেশে তৃণমূলে এমন ফুটবল টিমের যাত্রা গাজীপুরেই প্রথম।

তাদের ভাষ্য, ভালো প্রশিক্ষণ ও সুযোগ পেলে প্রতিবন্ধীরাও যে ঘুরে দাঁড়াতে পারে তা এমপিউটি ফুটবলেই প্রমাণ করে দেয়।

তামিম নামের এক কিশোর ২০১৬ সালে দুর্ঘটনায় এক পা হারান। তবে তিনি থেমে যাননি। তামিম বলেন, ‘মনের জোর ও নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস থাকলে সব প্রতিবন্ধকতাই জয় করা যায়। ’

এ ফুটবল টিম গঠনের উদ্যোক্তা মো. শিপন মিয়ার বাড়ি গাজীপুরের কালীগঞ্জের বক্তারপুর গ্রামে। তিনি এখন এমপিউটি জাতীয় ফুটবল দলের খেলোয়াড়। ২০১১ সালে নারায়ণগঞ্জে এক ট্রাক দুর্ঘটনায় তিনি গুরুতর আহত হন। এর পর তার এক পা হাঁটু থেকে কেটে ফেলতে হয়েছে।

হতদরিদ্র পরিবারের ছেলে শিপন মিয়ার ছোটকাল থেকেই ফুটবলে আসক্তি ছিল। সড়ক দুর্ঘটনা তার স্বপ্ন বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে উঠলে দুই ক্র্যাচে ভর দিয়েই শুরু হয় তার ফুটবল খেলা। বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়িং ম্যাচে জাপান, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ার সঙ্গে খেলায় দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি।

বাংলাদেশ জাতীয় এমপিউটি ফুটবল দলের প্রশিক্ষক শাহিদুল ইসলাম শাহীন জাতীয় ফুটবল দলের একজন নিয়মিত প্রশিক্ষক। তিনি কুলাউড়ার রবির বাজার ফুটবল একাডেমির পরিচালক। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে এমপিউটি ফুটবলের নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা রয়েছে। শিশু ও কিশোরদের এ খেলায় আনলে ভালো হতো। তবে আমাদের দেশে এমন খেলোয়াড় নেই বললেই চলে। এ ছাড়াও সারা দেশে এমপিউটি ফুটবল টিমও নেই। '

এ প্রশিক্ষক আরও বলেন, 'চলতি বছর আমরা সারা দেশ থেকে ১৪ জন খেলোয়াড় সংগ্রহ করে দেড় মাসের প্রশিক্ষণ দিয়ে বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে বিদেশি তিনটি দলের সঙ্গে অংশ নিয়েছিলাম। তবে ভাগ্য সুপ্রসন্ন ছিল না। এ ধরনের ফুটবলের জন্য তৃণমূলেই সাড়া জাগাতে হবে। '

এই রকম আরও টপিক