খাশোগি হত্যাকাণ্ডে প্রিন্স সালমানের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ মার্কিন আদালতের
খাশোগি হত্যাকাণ্ডে প্রিন্স সালমানের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ মার্কিন আদালতের

সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান (ছবি: সংগৃহীত)

খাশোগি হত্যাকাণ্ডে প্রিন্স সালমানের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ মার্কিন আদালতের

অনলাইন ডেস্ক

ওয়াশিংটন পোস্টের কলাম লেখক সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে মামলা করেন নিহতের বাগদত্তা খাদিজা চেঙ্গিস। তবে মঙ্গলবার সেই মামলা খারিজ করে দিয়েছে ওয়াশিংটনের একটি আদালত। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের দায়মুক্তি দেওয়ার পরই আদালত থেকে এমন রায় এলো। খবর রয়টার্সের।

বিচারক জন বেটস মঙ্গলবারের এ রায় দেন। জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত মামলা পরিচালনায় দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে এ বিচারকের। খাশোগির মামলাটি খারিজ করতে নিজের অনীহার কথা জানান তিনি। তবে বাইডেন প্রশাসনের সিদ্ধান্তের জন্য তিনি এমনটা করেছেন বলে জানিয়েছেন।

বেটস বলেন, ‘আদালতের অস্বস্তি সত্ত্বেও পরিস্থিতির জন্য এমনটা করতে হলো।  সৌদি আরবসহ বিদেশি বিভিন্ন বিষয় দেখভালের দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্র সরকারের। এখন যদি আদালত সৌদি যুবরাজের দায়মুক্তির বিষয়ে বিপরীত কোনো সিদ্ধান্ত দেয়, তা সরকারের ওই দায়িত্ব পালনে হস্তক্ষেপ হবে। তাই এই মামলা নিয়ে ভিন্ন কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়ার উপায় আমার হাতে নেই। ’

মামলার সহযোগী বাদী আব্দুল্লাহ আলাহুদ বলেন, ‘খাশোগি হত্যায় ন্যায়বিচারের জন্য আমাদের সংগ্রামের একটি পর্ব শেষ হতে পারে। তবে সালমানসহ সকল অপরাধীকে বিচারের আওতায় আনা না হওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ কখনই শেষ হবে না। ’

২০১৮ সালের ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি আরবের কনস্যুলেটের ভেতরে হত্যা করা হয় খাশোগিকে। হত্যার পর তার মরদেহ এসিড প্রয়োগ করে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দাদের বিশ্বাস, প্রিন্স সালমান নিজে এ হত্যাকাণ্ডের আদেশ দিয়েছিলেন। এ ঘটনায় মার্কিন আদালতে মামলা করেন খাশোগির বাগদত্তা।

খাশোগিকে হত্যার নির্দেশের বিষয়টি প্রথমে অস্বীকার করেন প্রিন্স সালমান। কিন্তু পরে তিনি স্বীকার করেন যে এটি তারর নজরে হয়েছিল।

গত সেপ্টেম্বরে সৌদি আরবের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন ক্রাউন প্রিন্স সালমান। এরপর গত ১৭ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেশটির আদালতকে জানান, একটি বিদেশি সরকারের বর্তমান প্রধান হিসেবে সৌদি যুবরাজ মার্কিন আদালতের বিচারের আওতা থেকে রেহাই পাবেন। ওই সময় খাশোগির বাগদত্তা বলেছিলেন, ‘আজকের রায়ের জন্য খাশোগি আবার মারা গেলেন। ’

news24bd.tv/মামুন