ব্রিটেনে ১৪ বছরের মধ্যে বাড়ির দামে সর্বোচ্চ পতন
ব্রিটেনে ১৪ বছরের মধ্যে বাড়ির দামে সর্বোচ্চ পতন

সংগৃহীত ছবি

ব্রিটেনে ১৪ বছরের মধ্যে বাড়ির দামে সর্বোচ্চ পতন

অনলাইন ডেস্ক

উচ্চ মূল্যস্ফীতিতে ধুকছে যুক্তরাজ্যের অর্থনীতি। কোনোভাবেই কমানো যাচ্ছে না এই পরিস্থিতি। এর প্রভাব পড়েছে দেশটির বাড়ির বাজারেও। ক্রমাগত হারে কমছে বাড়ির দাম।

অবস্থা এমন শোচনীয় অবস্থায় দাঁড়িয়েছে যে, ১৪ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে পৌঁছেছে বাড়ির দাম। খবর রয়টার্সের।

প্রতিবেদনে লন্ডন ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থাটি জানায়, ব্রিটেনে গত মাসের থেকে আরও কমেছে বাড়ির দাম। বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক সংকটের সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছে আবাসন বাজারে।

বৃহস্পতিবার বাড়ি কেনায় ঋণ দাতা প্রতিষ্ঠান হ্যালিফাক্স এ তথ্য জানিয়েছে।

রয়টার্স বলছে, টানা তৃতীয় মাসের মতো ব্রিটেনের বাড়ির দরে পতন অব্যাহত রয়েছে। গত মাসে অর্থাৎ নভেম্বরে দাম কমেছে ২ দশমিক ৩ শতাংশ; যা ২০০৮ সালের পর সবচেয়ে বড় পতন। আর গত অক্টোবরে বাড়ির দরে পতন হয়েছিল শূন্য দশমিক ৪ শতাংশ।

হ্যালিফাক্স বলেছে, বাড়ির দামের এই হ্রাস বাজারের অস্থিরতার সবচেয়ে খারাপ প্রতিফলন।

প্রতিবেদনে আর বলা হয়, ব্রিটেনের আর্থিক সম্পদের পতনের সূত্রপাত ঘটে গত সেপ্টেম্বর থেকে। ওই সময় সাবেক প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে বিভিন্ন এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য পদক্ষেপ নেয়। সেই সময়ে বাড়ি কেনার ক্ষেত্রে ঋণের সুদের পরিমাণ বাড়ানো হয়।

হ্যালিফাক্সের পরিচালক কিম কিনয়ার্ড বলেন, ‘ক্রয়ক্ষমতায় চাপ বাড়ার কারণে ক্রেতারা বাড়ি কিনতে আগ্রহী হচ্ছেন না। মার্কেট স্থবির হয়ে পড়ছে। কবে নাগাদ এই পরিস্থিতি ঠিক হবে বলা মুশকিল। ’

বাড়ির দামের পতনের এই ধারা আগামী বছরেও অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন অনেক বিশেষজ্ঞ। তারা বলছে, ২০২৪ সাল নাগাদ বাড়ির দাম কমবে ৯ শতাংশ পর্যন্ত।

ব্লুমবার্গ ইকোনমিক্সের সমীক্ষা অনুসারে, ব্রিটেনে বাড়ির দাম ২০ শতাংশ পর্যন্ত কমতে পারে। এর মূলে রয়েছে ব্যাংক অফ ইংল্যান্ডের সুদের হার বৃদ্ধি। দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইতোমধ্যেই সুদের হার বাড়িয়েছে ৩ শতাংশে নিয়েছে, যা এক বছর আগে ছিল শূন্য দশমিক ১ শতাংশ।

news24bd.tv/মামুন