হেক্সা জয়ের মিশনে এসে কাঁদতে হলো নেইমারদের
হেক্সা জয়ের মিশনে এসে কাঁদতে হলো নেইমারদের

সংগৃহীত ছবি

হেক্সা জয়ের মিশনে এসে কাঁদতে হলো নেইমারদের

অনলাইন ডেস্ক

হেক্সা জয়ের মিশনে কাতারে এসে এক বুক হতাশা নিয়ে ফিরতে হলো ব্রাজিলকে। কোয়ার্টার ফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে টাইব্রেকারে ৪-২ গোলে হেরে বিশ্বকাপ মিশন শেষ হলো রেকর্ড পাঁচবারের বিশ্বকাপ জয়ীদের। আরও একবার বিশ্বকাপের নকআউটে ব্রাজিলকে হতাশ করলো ইউরোপীয়ানরা। ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ের অপেক্ষা বেড়ে ২০ থেকে পরিণত হলো ২৪-বছরে।

অথচ ভিন্ন এক গল্প লিখতেই আজ মাঠে নেমেছিল তিতের দল। শুরু থেকেই আক্রমণে গিয়ে কাঁপন ধরাচ্ছিল ক্রোয়েশিয়ার রক্ষণে। তবে ক্রোয়াটদের আশার প্রদীপ হয়ে ব্রাজিলের একের পর এক আক্রমণ প্রতিহত করেছেন গোলরক্ষক ডমিনিক লিভাকোভিচ। মূলত ব্রাজিলকে হারতে হয়েছে এই লিভাকোভিচের কাছেই।

নির্ধারিত সময়ে বেশ কবার জোড়াল আক্রমণে গিয়েও গোল আদায় করতে ব্যর্থ হয়েছে ব্রাজিল। নেইমারকে একধিকবার হতাশ করেছেন তিনি। তবে ১০৫ মিনিটে আর নেইমারের কাছে পেরে ওঠেননি তিনি। ক্রোয়াট রক্ষণের ফাঁক গলে বল নিয়ে ছুটে যান নেইমার। নেইমারকে এবার আর থামাতে পারেননি লিভাকোভিচ। গোল উল্লাসে মাতে ব্রাজিল। নেইমার ছুঁয়ে ফেলেন কিংবদন্তী পেলের করা ৭৭ গোলের রেকর্ড।  

তবে শেষটাই নেইমারের সেই আনন্দ ধ্বনি পরিণত হয় কান্নায়। ব্রাজিলের আক্রমণ প্রতিহত করে দ্রুত পাল্টা আক্রমণে গিয়ে দলকে সমতায় ফেরান ব্রুনো পেটকোভিচ। উল্লাসের মুহূর্ত পেয়ে যায় ক্রোয়েশিয়া। এরপর আর বাকি কাজটুকু দায়িত্ব নিয়ে সামলে নেন ক্রোয়েশিয়া গোলরক্ষক লিভাকোভিচ। এরপর বাকি সময় চেষ্টা চালিয়েও আর গোল করতে পারেনি ব্রাজিল।

খেলা গড়ায় টাইব্রেকে। যেখানে মুনশিয়ানা দেখিয়েছেন ২৭ বছর বয়সী ক্রোয়েশিয়ান গোলরক্ষক। ব্রাজিলের প্রথম শটটি রুখে দিয়ে মনোবল ভেঙে দেন তিতের দলের। সাহসী হয়ে ওঠে ক্রোয়েশিয়া। আলিসন বেকার ঠেকাতে পারেননি একটি গোলও। উল্টো দলকে সমতায় ফেরাতে এসে গোল বঞ্চিত থাকেন মারকুইনহোস। তার নেওয়া শটটি ফিরে আসে গোল পোস্টে বাধা পেয়ে। আর তাতেই বিদায় নিশ্চিত হয় ব্রাজিলের। ৪-২ গোলে হেরে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায় ব্রাজিল।

অপেক্ষা বাড়ে হেক্সা জয়ের। অন্যদিকে বিশ্বের লাখো কোটি ফুটবল প্রেমীরা অপেক্ষা করছিল ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা সেমিফাইনাল দেখার। ব্রাজিল বাদ পড়ায় সেটিও এখন আর সম্ভব নয়। বিপরীতে পেলের রেকর্ড ভেঙে দিয়েও বাদ পড়তে হলো নেইমারকে।  নেইমারের সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ডটি হয়নি শিরোনাম। উল্টো চোখের জলে বিশ্বকাপ যাত্রা শেষ হয়েছে ব্রাজিলের।

news24bd.tv/আমিরুল