ইনিংস হারের মুখে দক্ষিণ আফ্রিকা, পিছিয়ে ৩৭১ রানে
ইনিংস হারের মুখে দক্ষিণ আফ্রিকা, পিছিয়ে ৩৭১ রানে

সংগৃহীত ছবি

ইনিংস হারের মুখে দক্ষিণ আফ্রিকা, পিছিয়ে ৩৭১ রানে

অনলাইন ডেস্ক

মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে (এমসিজি) তৃতীয় দিনে ৭ ওভার ব্যাটিং করার সুযোগ পেয়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে এই ৭ ওভারও নির্বিঘ্নে খেলতে পারেনি প্রোটিয়ারা। প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে ৩৮৬ পিছিয়ে পড়া সফরকারীরা দ্বিতীয় ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই হারায় উইকেট। তাতে ইনিংস হারের শঙ্কাই জেঁকে বসেছে প্রোটিয়াদের।

সেই শঙ্কা বাড়াচ্ছে দলটির সাম্প্রতিক ব্যাটিং দুরাবস্থা।

টেস্ট ক্রিকেটে সবশেষ ৭ ইনিংসে ২০০ পেরোনো কোনো স্কোর নেই দক্ষিণ আফ্রিকা। সর্বোচ্চ সংগ্রহ ১৮৯। অথচ ইনিংস হার থেকে বাঁচতে এখনো দক্ষিণ আফ্রিকার প্রয়োজন ৩৭১ রান।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার ১ উইকেটে ১৫ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করবেন সারেল এরউই এবং থেউনিস ডি ব্রুইন।

এমসিজিতে বক্সিং ডে টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার এতো পিছিয়ে পড়ার কারণ অ্যালেক্স ক্যারে। টেস্টের তৃতীয় দিনে সেঞ্চুরি তুলে নেন এই অসি কিপার। ৯ বছর পর টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার উইকেটকিপার হিসেবে সেঞ্চুরি করার দিন দলকে রান পাহাড় গড়ে দেন তিনি। ৮ উইকেটে ৫৭৫ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে স্বাগতিকরা। ক্যারে সাজঘরে ফেরার আগে করেন ১১১ রান।

বৃষ্টির কারণে তৃতীয় দিনে খেলা হয়েছে মাত্র ৫৪ ওভার। ওয়ার্নারের ডাবল সেঞ্চুরি আর স্টিভ স্মিথের ৮৫ রানের ইনিংসে ১৯৭ রানে এগিয়ে থেকে তৃতীয় দিনে ব্যাট করতে নামে অস্ট্রেলিয়া। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে দিনের আঘাত হানে আনরিখ নর্কিয়া। ট্রেভিস হেড আউট হন ৫১ রান করে। এরপর ক্রিজে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে ফিরে যাওয়া ডেভিড ওয়ার্নার। তবে আজ আর রানের খাতা খুলতে পারেননি তিনি। এরপর ফেরেন প্যাট কামিন্স। আঙুলের চোটের কারণে তখনো ক্রিজে আসেননি গ্রিন।

তবে নাথান লায়ন ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে না পারলে মাঠে নামতে হয় তার। আঙুলের চোটে সিরিজ থেকে ছিটকে যাওয়া অলরাউন্ডার খেলেন ১৭৭ বল, অপরাজিত থাকেন ৫১ রানে। গ্রিন রক্ষণাত্মক কৌশলে খেললেও অপর প্রান্তে আক্রমণাত্মক খেলেই ক্যারি করেন ১১১ রান। চোট নিয়ে ব্যাট করেছেন মিচেল স্টার্কও। এরপর নতুন বলে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে শুরুটাও করেন তিনি। তবে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে প্রথম উইকেট নেন কামিন্স। খালি হাতে ফেরান প্রোটিয়া অধিনায়ক ডিন এলগারকে।

news24bd.tv/সাব্বির