ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের বিষয়ে আইসিজের মত চায় জাতিসংঘ
ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের বিষয়ে আইসিজের মত চায় জাতিসংঘ

সংগৃহীত ছবি

ফিলিস্তিনে ইসরায়েলের দখলদারিত্বের বিষয়ে আইসিজের মত চায় জাতিসংঘ

অনলাইন ডেস্ক

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডে ইসরায়েলের দখলদারিত্ব ঠেকাতে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিজে) মতামত চেয়ে জাতিসংঘে একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। শুক্রবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে প্রস্তাবটি পাস হয়। খবর আল-জাজিরার।

সাধারণ পরিষদের প্রস্তাবটির পক্ষে ভোট পড়ে ৮৭টি।

বিপক্ষে পড়ে ২৬টি। আর ভোট দান থেকে বিরত ছিল ৫৩ দেশ। রাশিয়া ও চীন এই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে। তবে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দেয়।
আর ভোট দান থেকে বিরত ছিল ফ্রান্স।

হেগ ভিত্তিক আইসিজে, বিশ্ব আদালত নামেও পরিচিত। জাতিসংঘের শীর্ষ আদালত এটি। এর রায়গুলো বাধ্যতামূলক। তবে রায় বাস্তবায়ন করার ক্ষমতা নেই আইসিজের।

জাতিসংঘের এই প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছে ফিলিস্তিনি নেতারা। দেশটির সিনিয়র নেতা হুসেইন আল-শেখ বলেছেন, ‘এই প্রস্তাবনা ফিলিস্তিনি কূটনীতির বিজয়কে প্রতিফলিত করে। ’

ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের মুখপাত্র নাবিল আবু রুদেইনেহ বলেছেন, ‘ইসরায়েলের আইনের অধীন একটি রাষ্ট্র হওয়ার এবং আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে চলমান অপরাধের জন্য দায়বদ্ধ হওয়ার সময় এসেছে। ’

জাতিসংঘে নিযুক্ত ফিলিস্তিনের দূত রিয়াদ মনসুর বলেছেন, ‘কট্টরপন্থী বেনায়িমানি নেতানিয়াহুর সরকার গঠনের এক দিন পরেই জাতিসংঘ থেকে এই প্রস্তাব পাস হলো। ’

জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের দূত থমাস পিপস বলেন, ‘আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে অঞ্চলটিতে শান্তি ফেরিয়ে আনা ও দুপক্ষের আলোচনা সম্ভব নয় বলে আমরা মনে করি। ’

১৯৬৭ সালে গাজা স্ট্রিপ, পূর্ব জেরুজালেমসহ পশ্চিম তীর দখল করে ইসরায়েল। এরপর আন্তর্জাতিক আইন অমান্য করে বিভিন্ন সময়ে পশ্চিম তীরে নিজেদের ভূখণ্ড সম্প্রচার করেছে তারা। বর্তমানে অঞ্চলটিতে ৫ লাখ ইসরায়েলি বসবাস করছে। পশ্চিম তীর অন্তত ২৫ লাখ ফিলিস্তিনি বাস করছে। তবে তাদের গতিবিধি কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে ইসরায়েলি বাহিনী। এমনকি পশ্চিম তীরে ইহুদি ও ফিলিস্তিনিদের চলাচলের জন্য আলাদা রাস্তা তৈরি করেছে তারা।

news24bd.tv/মামুন