হাড়কাঁপানো ঠান্ডার মধ্যে শৈত্যপ্রবাহের সতর্কতা জারি
হাড়কাঁপানো ঠান্ডার মধ্যে শৈত্যপ্রবাহের সতর্কতা জারি

সংগৃহীত ছবি

হাড়কাঁপানো ঠান্ডার মধ্যে শৈত্যপ্রবাহের সতর্কতা জারি

অনলাইন ডেস্ক

পর পর তিনবার শৈত্যপ্রবাহের ধাক্কা সামলেছে ভারতের রাজধানী দিল্লি। গত ২৩ বছরে ইতিহাসে যা রেকর্ড। কিন্তু এরপরও মিলছে না মুক্তি। শনিবার (১৪ জানুয়ারি) থেকে নতুন করে শৈত্যপ্রবাহের সতর্কতা জারি করেছে ভারতের আবহাওয়া বিভাগ (আইএমডি)।

অর্থাৎ ঠান্ডা আর কুয়াশার মধ্যেই আবারও নতুন করে হাড়কাঁপানো ঠান্ডা শুরু হবে ভারতের রাজধানীতে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, জানুয়ারির শুরু থেকে হাড় কাঁপানো ঠান্ডায় কাঁপছে রাজধানী দিল্লি। ৫ ডিগ্রি থেকে ৩ ডিগ্রি। এরপর এক ধাক্কায় একেবারে ২ ডিগ্রির নিচে নেমে গিয়েছিল দিল্লির তাপমাত্রা।

ঘর থেকে বের হতে পারছিলেন না মানুষ।

এমনকি থমকে গিয়েছিল জনজীবন। খুলে দেওয়া হয়েছিল একাধিক নাইট শেল্টার। বরফ পড়াটাই বাকি ছিল দিল্লিতে। সেই ঠান্ডা কিছুটা কমেছে গত কয়েক দিনে। এসময় তাপমাত্রা কিছুটা বেড়েছে। কিন্তু ফের ঠান্ডা বাড়বে বলে সতর্ক করেছে আইএমডি।

ভারতীয় আবহাওয়া বিভাগের সতর্কতায় বলা হয়েছে, পর পর দু’টি শৈত্যপ্রবাহের ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই রাজধানী 

শনিবার অর্থাৎ পৌষ সংক্রান্তির ঠিক আগের দিন থেকে রাজধানী দিল্লিতে শুরু হয়ে যাবে আরও একটি শৈত্য প্রবাহ। ইতোমধ্যেই পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর রাজস্থান, চণ্ডীগড়, দিল্লিতে হালকা বৃষ্টির পূর্বাভাসও দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।

এদিকে শৈত্যপ্রবাহের পাশাপাশি এবার ঘন কুয়াশার দাপটও দেখেছে দিল্লি। টানা ৫০ ঘণ্টা ঘন কুয়াশার মধ্যে থাকতে হয়েছে রাজধানীর বাসিন্দাদের। গত ৩ থেকে ৯ জানুয়ারি টানা ৫ দিন রাজধানী দিল্লিতে তাপমাত্রা থেকেছে ৩ ডিগ্রির নিচে। গত ৬ জানুয়ারি দিল্লির তাপমাত্রা নেমে গিয়েছিল ১.৯ ডিগ্রিতে।

এখনও পর্যন্ত রাজধানী দিল্লিতে যা রেকর্ড বলা চলে। তার মধ্যে ঘন কুয়াশা। রাজধানী দিল্লিসহ উত্তর ভারতের একাধিক রাজ্যে গত সাতদিন ধরে প্লেন এবং ট্রেন পরিষেবা ব্যহত হয়েছে। তীব্র শীতই ছিল সেটার কারণ। সেই অবস্থা আবারও ফিরে আসতে চলেছে ১৪ জানুয়ারি থেকে।

সংবাদমাধ্যম বলছে, গত ২৩ বছরে এরকম লাগাতার শৈত্যপ্রবাহের দাপট দেখেনি রাজধানী দিল্লি। পর পর তিনবার শৈত্যপ্রবাহ দেখা দিয়েছে। তার জেরে তাপমাত্রার অনেকটাই কমে গেছে। তার অন্যতম কারণ পরিষ্কার আকাশ।

সেকারণে হিমালয়ের হিমেল বাতাস কোনও রকম বাধা না পেয়েই ঢুকেছে উত্তর ভারতে। উত্তরাখণ্ড, কাশ্মির, হিমাচল প্রদেশে এবার রেকর্ড তুষারপাতও হয়েছে।

news24bd.tv/আলী