ইতালির স্কুলে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত, পতাকা উত্তোলন
ইতালির স্কুলে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত, পতাকা উত্তোলন

ইতালির স্কুলে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত, পতাকা উত্তোলন

ইতালি প্রতিনিধি

ইতালির স্কুলে তুলে ধরা হলো বাংলাদেশের সংস্কৃতি। রোমে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস অ্যাডপশন প্রোগ্রাম (ইএপি) এর প্রথম ধাপ ‘মিট দ্যা স্কুল’ এর অংশ হিসেবে গত ১৩ জানুয়ারি সারদিনিয়ার ম্যাকোমার শহরের লিচিও গ্যালেলিও গ্যালেলেই স্কুল পরিদর্শনে যায়। সেখানে এক প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে বাংলাদেশকে তুলে ধরা হয়।

গ্লোবাল অ্যাকশন নামে একটি ইতালীয় সংস্থার সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে ২০২১ সাল থেকে এই ডিপ্লোম্যাসি এডুকেশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

তবে এই প্রথমবারের মতো দূতাবাসের কর্মকর্তাগণ সশরীরে অংশগ্রহণ করেন এবং রোমের বাইরে সারদিনিয়ার একটি বিদ্যালয় নির্বাচন করে সেখানে এ কর্মসূচির আয়োজন করেন।

কর্মসূচির প্রথমে স্কুলটির ছাত্রছাত্রীদের পরিবেশনায় দুই দেশের জাতীয় সংগীত পরিচালনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। তাদের পরিবেশনায় দুই দেশের পতাকা, বর্ণমালা, ভাবধারা দ্বারা সুসজ্জিত ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এক বিশেষ মাত্রা যোগ করে।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আহসান বক্তব্যের শুরুতেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ওপর গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

তিনি চলমান বাংলাদেশ ইতালির দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে দূতাবাস কর্তৃক গৃহীত কর্মসূচির কথাও উল্লেখ করেন। এরপর, দূতাবাসের প্রথম সচিব আয়েশা আক্তার একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে বাংলাদেশকে তুলে ধরেন।

এরপর, রাষ্ট্রদূত তরুণ ও উৎসুক ছাত্রছাত্রীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। তিনি বাংলাদেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি, অর্থনীতি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান বাংলাদেশের অভূতপূর্ব সফলতার গল্প তুলে ধরেন। রাষ্ট্রদূত ছাত্রছাত্রীদের বুদ্ধিদীপ্ত প্রশ্ন শোনেন এবং বাংলাদেশ সম্পর্কে আগ্রহ দেখে অভিভূত হন। তিনি বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ গাভিনা কাপাই এবং গ্লোবাল প্রজেক্ট অ্যাকশন এর কোঅরডিনেটর এলিসা গুইসিওকে অনুষ্ঠান সমন্বয়ের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

এসময় ম্যাকোমারের শহরের প্রিফেক্ট জনাব জিয়ানকারলো দিওনিসি এবং মেয়র ড. এন্তোনিও অনোরাতো সুকু উভয়েই এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং বাংলাদেশ দূতাবাসকে ইতালির শিক্ষার্থীদের মধ্যে বাংলাদেশকে তুলে ধরার জন্য অশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

তারা মনে করেন উক্ত কর্মসূচির মাধ্যমে দুই দেশের বোঝাপড়া এবং বন্ধুত্ব আরও প্রগাঢ় হবে। অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়ের বিশাল অডিটোরিয়ামে অসংখ্য শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং অন্যান্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশের উপর প্রেজেন্টেশনটি উপস্থিত উৎসুক শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগায় এবং তারা ব্যাপক করতালির মাধ্যমে তা প্রকাশ করে।

ইতালির জনসাধারণের মাঝে বাংলাদেশের ইতিবাচক ভাবধারা ফুটিয়ে তুলতে দূতাবাসের আয়োজিত জনকূটনীতি প্রকল্পের অংশ হিসেবে অনুষ্ঠানটি পরিচালিত হয়েছে। ইতোপূর্বে কোভিড মহামারির সময়ে বাংলাদেশ দূতাবাস ইএপি এর অংশ হিসেবে দুইবার ইতালির রোমের দুইটি বিদ্যালয় ডিজিটাল মাধ্যমে অংশগ্রহণ করেছে।

news24bd.tv/FA