ভোমরা বন্দরে সাত মাসে রাজস্ব ঘাটতি ৩১১ কোটি টাকা

সংগৃহীত ছবি

ভোমরা বন্দরে সাত মাসে রাজস্ব ঘাটতি ৩১১ কোটি টাকা

অনলাইন ডেস্ক

চলতি অর্থবছরের শুরু থেকেই রাজস্ব ঘাটতিতে পড়েছে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর। সবশেষে গত মাসেও বন্দরটিতে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক কম রাজস্ব আদায় হয়েছে। বন্দরসংশ্লিষ্টরা বলছেন, কভিড মহামারী-পরবর্তী সময়ে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধসহ নানা ধরনের বৈশ্বিক সংকটের প্রভাব পড়েছে দেশের বাণিজ্যে। তারই রেশ ধরে ভোমরা স্থলবন্দরের বাণিজ্য কার্যক্রমেও মন্দা দেখা দিয়েছে।

তবে সিঅ্যান্ডএফ নেতাদের দাবি, এ বন্দর দিয়ে সব ধরনের পণ্য আমদানি করতে দেয়া হয় না। এ বৈষম্যের কারণেই রাজস্ব ঘাটতির পরিমাণ বাড়ছে।  

ভোমরা শুল্ক স্টেশনের রাজস্ব শাখা সূত্রে জানা গেছে, চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এ বন্দরের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল ৬৩৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। এর মধ্যে মাসভিত্তিতে জুলাইয়ের জন্য লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬৬ কোটি ১৫ লাখ, আগস্টে ৮৪ কোটি ৪১ লাখ, সেপ্টেম্বরে ৯৬ কোটি ৬৯ লাখ, অক্টোবরে ১০০ কোটি ৮৮ লাখ, নভেম্বরে ৯৮ কোটি ৫৬ লাখ, ডিসেম্বরে ৮৪ কোটি ১২ লাখ এবং জানুয়ারিতে ১০৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

 

গত সাত মাসে এ লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেকের চেয়ে কিছু বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে। টাকার অংকে এর পরিমাণ ৩২৩ কোটি ২৪ লাখ। যেখানে জুলাইয়ে ৪৪ কোটি ৭৪ লাখ, আগস্টে ৫৫ কোটি ২ লাখ, সেপ্টেম্বরে ৫৪ কোটি ৬০ লাখ, অক্টোবরে ৪০ কোটি ৯৫ লাখ, নভেম্বরে ৪২ কোটি ৮ লাখ, ডিসেম্বরে ৩৯ কোটি ৯১ লাখ এবং জানুয়ারিতে আদায় হয়েছে ৪৫ কোটি ৭৬ লাখ টাকার রাজস্ব। সে হিসেবে লক্ষ্যমাত্রায় ঘাটতি রয়েছে ৩১১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।

এর আগের অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে এ বন্দরে রাজস্ব আদায় হয়েছিল ৪২০ কোটি ২ লাখ টাকা। সে হিসাবেও চলতি অর্থবছরের একই সময় পর্যন্ত রাজস্ব আদায়ে ঘাটতি রয়েছে।

উল্লেখ্য, দেশের সব বন্দর দিয়ে পণ্য রফতানি করা গেলেও কোন বন্দর দিয়ে কী ধরনের পণ্য আমদানি করা যাবে, তা নির্দিষ্ট করে দেয়া আছে। সে অনুযায়ী নির্দিষ্ট পণ্যই ভোমরা দিয়ে আমদানি করতে হয়।  

news24bd.tv/ইস্রাফিল

পাঠকপ্রিয়