২০ জুন ,বৃহস্পতিবার, ২০১৯

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> অপরাধ

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

১২ সেপ্টেম্বর , বুধবার, ২০১৮ ২০:৪০:০৬

শপিং করতে গিয়ে মাদক কারবারীর সাথে পরিচয়, অতঃপর...


শপিং করতে গিয়ে মাদক কারবারীর সাথে পরিচয়, অতঃপর...

এক নারী মাদকসেবী


বছর দুয়েক আগে ঢাকা নিউ মার্কেটে কেনাকাটা করতে যান গৃহবধূ সাদিয়া ইসলাম মায়া। সেখানে দুই নারীর সাথে পরিচয় হয় তার। ফোন নম্বরও আদান-প্রদান হয়। কিন্তু এই পরিচয় যে সাদিয়ার জীবনকে অন্ধকারে ঠেলে দিবে তখন তা ঘুনাক্ষরেও বুঝতে পারেননি সাদিয়া। গৃহবধূ সাদিয়া এখন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক। তিনি এখন ঢাকা শহরের শীর্ষ মাদক সম্রাজ্ঞী।

কীভাবে সাদিয়া এই অন্ধকার জগতে পা বাড়ালেন? সেই ঘটনা অনেকটা সিনেমার মতো। অর্থ-বিত্তের আকাঙ্ক্ষা সবারই থাকে। ছিল সাদিয়ারও। কেউ সৎ পথে দীর্ঘদিন পরিশ্রম করে সম্পদ গড়েন, কেউ অসৎ সঙ্গে পড়ে সহজে টাকা বানাতে খুঁজে নেন বিপজ্জনক অবৈধ পথ। সাদিয়াও তেমন 'শর্টকাট' বিপজ্জনক পথ খুঁজে পেয়েছিলেন নিউ মার্কেট এলাকায় পরিচয় হওয়া দুই নারীর সঙ্গে পরিচয়ের পর। ওই দুই নারীই জড়িত ছিল মাদক ব্যবসার সঙ্গে। তারা পরিচয়ের পর থেকেই সাদিয়ার সঙ্গে নিয়মিত ফোনে যোগাযোগ করতে শুরু করেন। মাদক ব্যবসায় নগদ টাকা, অল্প সময়ে বিত্তবান হওয়ার গল্প দুই মাদক কারবারীর কাছ থেকে প্রায়ই শুনতো সাদিয়া। একটা সময় ওই দুই মাদক কারবারী সাদিয়া ওরফে মায়াকে মাদক ব্যবসায় যোগ দেওয়ার প্রস্তাব দেয় এবং মাদকের চালান পেতে সহযোগিতারও আশ্বাস দেয়। কাচা টাকার লোভ সামলাতে পারেননি সাদিয়া। একপর্যায়ে মাদক কারবারীর খাতায় নাম লেখান। সেই থেকে শুরু সাদিয়ার অন্ধকার জগতে পথচলা।

এক সময় পুলিশের খাতায় নাম ওঠে সাদিয়ার। মাদক ব্যবসা করতে গিয়ে মাঝে মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরাও পড়তে হয়েছে তাকে। জেলও খাটতে হয়েছে। তবে অধিকাংশ সময়ই আইনের ফাঁক গলে বেরিয়ে আসে সে। ফের একই কাজে নেমে পড়ে। দীর্ঘদিন ধরে রাজধানীর বাড্ডা এলাকায় থেকে ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদকের অন্যতম নেটওয়ার্ক হিসেবে কাজ করছিলেন সাদিয়া। সর্বশেষ আজ (১২ সেপ্টেম্বর, বুধবার) দুপুরে সহযোগীসহ ফের ধরা পড়েছে বাড্ডা এলাকার শীর্ষ এই মাদক সম্রাজ্ঞী।

র‌্যাব-৩ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট আশিকুর রহমান বলেন, ‘বুধবার বাড্ডা এলাকার ১৩ নম্বর রোডের ‘সি’ ব্লকের একটি বাসা থেকে সাদিয়া ও তার সহযোগী মুহাম্মদ কাইয়ুম খানকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।’ 

‘গোপন সূত্রে র‌্যাব জানতে পারে, সাদিয়ার বাড্ডার বাসায় ইয়াবার বড় একটি চালান এসেছে। সেই সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। সাদিয়া দীর্ঘ দিন ধরে চট্টগ্রাম থেকে ইয়াবা এনে ব্যবসা করতো। বাড্ডা ও ভাটারা থানায় তার নামে মামলা রয়েছে। এর আগে জেলও খেটেছে সে। জেল থেকে বের হয়ে ফের একই পেশায় যুক্ত হয়েছে সে’- জানান র‌্যাব কর্মকর্তা আশিকুর রহমান।

র‌্যাব জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে, বেশ কয়েক বছর আগে কাইয়ুম ও সাদিয়ার পরিবার একই ভবনে ভাড়া থাকতো। সেই সুবাদে তাদের পরিচয়। তবে মাঝে কাইয়ুম লন্ডনে চলে যায়। বছর দুয়েক আগে সে দেশে ফেরে। দেশে আসার পর সাদিয়া কাইয়ুমকে মাদক ব্যবসায় যুক্ত করে। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা করে পুলিশে হস্তান্তর করা হবে।


অরিন▐ NEWS24


সাবেক এমপি রানার জামিন স্থগিত
বাংলাদেশকে ৩৮২ রানের টার্গেট দিল অস্ট্রেলিয়া
ডিআইজি মিজানের সম্পদ ক্রোক ও হিসাব জব্দ
ওয়ার্নারের শতকে বড় সংগ্রহের পথে অজিরা
হানিফ পরিবহনের ধাক্কায় দুই শিক্ষার্থী নিহত
যুবলীগ নেতা হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড
টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে অস্ট্রেলিয়া
রাজীবের পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ 
মার্কিন গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করল ইরান
তিনটি করে গাছ লাগানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
আজ বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
‘বিনা চিকিৎসায় মুরসিকে হত্যা করা হয়েছে’
নারায়ণগঞ্জে ‌‘বন্ধুকযুদ্ধে’ ১৫ মামলার আসামি নিহত
বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
মাকে হত্যা করে মেয়েকে ধর্ষণ: জবানবন্দি দিলেন সাগর
যেভাবে উদ্ধার সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভ
মোহম্মদপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত
'আগামীতে দেশের সব নির্বাচন ইভিএম’র মাধ্যমে হবে'
'জনগণ ভোট দেয়ার প্রতি আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে'
কিউইদের ২৪২ রানের টার্গেট দিল দ.আফ্রিকা
সাবেক এমপি রানার জামিন স্থগিত
বাংলাদেশকে ৩৮২ রানের টার্গেট দিল অস্ট্রেলিয়া
ডিআইজি মিজানের সম্পদ ক্রোক ও হিসাব জব্দ
পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' মাদক ব্যবসায়ী নিহত 
ওয়ার্নারের শতকে বড় সংগ্রহের পথে অজিরা
হানিফ পরিবহনের ধাক্কায় দুই শিক্ষার্থী নিহত
যুবলীগ নেতা হত্যায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড
টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে অস্ট্রেলিয়া
রাজীবের পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ 
মার্কিন গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করল ইরান
তিনটি করে গাছ লাগানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
আজ বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
‘বিনা চিকিৎসায় মুরসিকে হত্যা করা হয়েছে’
নারায়ণগঞ্জে ‌‘বন্ধুকযুদ্ধে’ ১৫ মামলার আসামি নিহত
বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত
মাকে হত্যা করে মেয়েকে ধর্ষণ: জবানবন্দি দিলেন সাগর
যেভাবে উদ্ধার সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভ
মোহম্মদপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ যুবক নিহত
'আগামীতে দেশের সব নির্বাচন ইভিএম’র মাধ্যমে হবে'
এইচআইভিতে আক্রান্ত ৪৬ জনকে শনাক্ত
যেভাবে উদ্ধার সোহেল তাজের ভাগ্নে সৌরভ
কুকুরের সঙ্গে মিলিত হতে চায় স্বামী, বিপাকে স্ত্রী!
ইতিহাস গড়ল টাইগাররা
গায়ে হলুদ অনুষ্ঠানে কাঁদলেন নুসরাত
চারদিন পর কমলো সোনার দাম
এইচআইভিতে আক্রান্ত ৪৬ জনকে শনাক্ত
ঢাবি ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ, গ্রেপ্তার ১
মান্দায় মাকে হত্যার পর মেয়েকে ধর্ষণ
মার্কিন গোয়েন্দা ড্রোন ভূপাতিত করল ইরান
গ্রেপ্তার হলেন ওসি মোয়াজ্জেম
বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে যা বলছে!
ফেসবুকে প্রেম, জার্মান নারী এখন খুলনায়
মিশরের ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মুরসির মৃত্যু
দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে যুবলীগ নেতাকে হত্যা
রিয়াদে ২৮ বাংলাদেশির মানবেতর জীবন-যাপন
‘ইরানের সঙ্গে যুদ্ধের ব্যাপারে সাবধান’
সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ফের সাকিব
‘ইসরাইল আমেরিকার বন্ধু নয়’
ঘুম থেকে জাগিয়ে ছাত্রকে বলাৎকার করল শিক্ষক
নি‌খোঁজের ১৬ ঘণ্টা পর শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার

সব খবর