সিনিয়র ক্রিকেটারদের বিষয়ে যা বললেন হাতুরুসিংহে

সংগৃহীত ছবি

সিনিয়র ক্রিকেটারদের বিষয়ে যা বললেন হাতুরুসিংহে

অনলাইন ডেস্ক

দ্বিতীয় মেয়াদে টাইগারদের দায়িত্ব পেয়েছেন বাংলাদেশের অন্যতম সফল কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। দায়িত্ব পাওয়ার পর  প্রথম সংবাদ সম্মেলনে হাতুরুসিংহে বলেছেন সিনিয়র ক্রিকেটারদের সামলানো চ্যালেঞ্জিং হবে না। সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যম কর্মীদের নানা প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন তিনি।  

দ্বিতীয় মেয়াদে বাংলাদেশে ফেরার কারণ হিসেবে হাতুরুসিংহে বলেন, (২০১৭ সালে) চলে যাওয়ার পর থেকেই আমি বাংলাদেশ ক্রিকেটকে অনুসরণ করছি।

বিভিন্ন সময়ে খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল। বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য আমার সব সময়ই একটা জায়গা ছিল হৃদয়ে। এটা আমার প্রথম আন্তর্জাতিক অ্যাসাইনমেন্ট (কাজ)। মাথায় সব সময় ফিরে আসার কথা কাজ করত।
কিন্তু এত তাড়াতাড়ি ফিরে আসব, ভাবিনি।

তিনি আরও বলেন, সামনের ২-৩ বছর বাংলাদেশের জন্য পালাবদলের সময়। কজন সিনিয়র ক্রিকেটার বাংলাদেশের হয়ে দারুণ খেলেছে। তাদের অবশ্যই খুব ভালো প্রজন্ম হিসেবে মনে রাখা হবে। অন্যদিকে অনেক ভালো তরুণ ক্রিকেটারও এখন উঠে আসছে। এই ধরনের চ্যালেঞ্জের অংশ হওয়াটা আমাকে ফিরতে অনুপ্রাণিত করেছে।

সিনিয়র ক্রিকেটার সম্পর্কে তিনি বলেন, সিনিয়রদের সবার সঙ্গে এরই মধ্যে কথা হয়েছে। সবারই মনোযোগের কেন্দ্রে আছে একটি ব্যাপার- দল সবার ওপরে। দলের ভালোর জন্য সবাই চেষ্টা করে যাবে। এমনকি আগেরবারের দায়িত্বেও ক্রিকেটারদের কাউকে নিয়ে কোনো চ্যালেঞ্জে পড়তে হয়নি। আমার চ্যালেঞ্জ হলো, সবার মনোযোগ দলের ভালোর দিকে নেওয়ায়। আমার তাই মনে হয় না, এটা (সিনিয়রদের সামলানো) চ্যালেঞ্জ হবে।

সিনিয়র সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, যে ভূমিকা তারা পালন করছে, ১৫-১২-১০ বছর ধরেই সেটা করে আসছে। যত দিন তারা খেলছে, যত দিন দলে সুযোগ পাচ্ছে, এই ভূমিকাই পালন করে যাবে। আমার মনে হয় না, তাদের ভূমিকা খুব একটা বদলাবে। তারা বিশ্বমানের ক্রিকেটার এবং নিজেদের ভূমিকায় তারা দারুণ সফলও।

হোম অ্যাডভান্টেজ বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে হাতুরুসিংহে বলেন, এই ব্যাপারটি আসলে কী! নিউজিল্যান্ডে গেলে কোন ধরনের উইকেট পাই আমরা? অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডে যখন আমরা যাই, তারা কী করে? ভারত এখন কী করছে ঘরের মাঠে? দেশের বাইরে আমাদের যা আছে, তা দিয়েই সামলে নিতে হবে। যদি মিসাইল না থাকে, তাহলে কীভাবে লড়বেন? আমাদের গেরিলা যুদ্ধ করতে হবে, তাই না? তারা আমাদের দেশে আসবে, আমরা ছোট অস্ত্র নিয়ে লড়ব (তা হয় না)। যদি আমাদের গোলাবারুদ না থাকে, আমরা কিছু করতে পারব না। প্রতিটি দেশই এটা করে … হোম অ্যাডভান্টেজ নেওয়া উচিত।

২০২৩ বিশ্বকাপে লক্ষ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, কোচের জন্য সব সময়ই চাপ থাকবে, তাই নয় কি? দল ভালো না করলে কোচকে প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে। তবে আমাদের সবার প্রত্যাশা আছে (বিশ্বকাপে ভালো করার)। জাতি হিসেবেই সবার প্রত্যাশা আছে; কারণ, এটা ভারতে হবে। এই সংস্করণে ভালো করে আসছি। প্রত্যাশা আছে, তবে এই সময়ে আমরা যেটা করতে পারি, সেটা হলো প্রস্তুতি। আমরা আমাদের সেরা প্রস্তুতিটা নিলে, সেরা তারকারা ফিট ও সুস্থ থাকলে বিশ্বকাপে ভালো করব বলে বিশ্বাস করি।

news24bd/আজিজ