শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০৯ ঘন্টা ১৯ মিনিট আগে

রাঙামাটিতে পর্যটন দিবস পালিত

ফাতেমা জান্নাত মুমু▐ রাঙামাটি

রাঙামাটিতে পর্যটন দিবস পালিত

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে রাঙামাটিতে বিশ্ব পর্যটন দিবস পালিত হয়েছে।দিবসটি উপলক্ষ্যে আজ (২৭ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার) সকালে শান্তির প্রতীক পায়রা উড়িয়ে কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। এরপর রাঙামাটি জেলা পরিষদ চত্বরের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বেরা করা হয়। 

র‌্যালিটির উদ্বোধন করেন জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অংসুপ্রু চৌধুরী।র‌্যালিটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে গিয়ে শেষ হয়। বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন স্কাউটসের সদস্যসহ জেলা পরিষদের সদস্যরা। 

পরে “পর্যটন শিল্পের বিকাশে তথ্য প্রযুক্তি”- প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জেলা পরিষদ ও পর্যটন করপোরেশনের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় যোগ দেন রাঙামাটির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. নজরুল ইসলাম,জেলা সিভিল সার্জন ডাক্তার শহীদ তালুকদার, ট্যুরিস্ট পুলিশ কর্মকর্তা মো. সরোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম, জেলা পরিষদ সদস্য মনোয়ারা আক্তার জাহান, রাঙামাটি পর্যটন মোটেলের ব্যবস্থাপক সৃজন বিকাশ বড়ুয়া,রাঙামাটি হোটেল মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক মো. নেছার আহমেদ, রোভার স্কাউটসের সভাপতি মো. নুরুল আবছার প্রমুখ।

সভায় বক্তরা বলেন, রাঙামাটিতে পর্যটন শিল্পের বিকাশে সবাইকে আন্তরিকতার সাথে এগিয়ে আসতে হবে। এ শিল্পকে বিকশিত ও পর্যটকদের মুগ্ধ করতে এ জেলায় রয়েছে বৃহৎ কাপ্তাই হ্রদ, পাহাড়, ঝুলন্ত সেতু, প্রাকৃতিক সম্পদ ও বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান, যা দেশের অন্য কোনো জেলায় নেই। 

বক্তরা আরও বলেন, অতীতে এ সেক্টরকে যেভাবে অবহেলা করা হয়েছে, সেভাবে অবহেলা করলে চলবেনা। এ সেক্টরের মাধ্যমে এ জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাড়ানো সম্ভব। পার্বত্য চুক্তি অনুযায়ী, পর্যটন সেক্টর পার্বত্য জেলা পরিষদে হস্তান্তরিত হয়। এরপর থেকেই এ সেক্টরের উন্নয়নে মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করছে রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ।


মুমু▐ অরিন▐ NEWS24

মন্তব্য