নারীকে খুন করেছি, কারণ আমি তা চেয়েছিলাম: স্পিকারের ছেলে
নারীকে খুন করেছি, কারণ আমি তা চেয়েছিলাম: স্পিকারের ছেলে

সংগৃহীত ছবি

নারীকে খুন করেছি, কারণ আমি তা চেয়েছিলাম: স্পিকারের ছেলে

অনলাইন ডেস্ক

জাপানের মধ্যাঞ্চলীয় শহর নাগানোতে বন্দুক ও ছুরি হামলায় দুই নারী ও দুই পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (২৫ মে) বিকেল ৪টা ১৫ মিনিটে নাগানোর প্রত্যন্ত অঞ্চলে বন্দুকধারীর হামলায় হতাহতের এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা বিবিসি জানায়, নাগানোর প্রত্যন্ত এক অঞ্চলে বন্দুক ও ছুরি হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে চার জন নিহত হয়েছেন।

হামলাকারী যুবক সিটি অ্যাসেম্বলি স্পিকার মাসামিচি আওকির ছেলে। তার প্রথম শিকার ছিল এক নারী। প্রায় এক ফুট লম্বা একটি ছুরি দিয়ে ওই নারীকে কুপিয়ে হত্যা করেন যুবক।

হত্যার উদ্দেশ্য এখনও স্পষ্ট নয়।

ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ তাকে খুনের কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, `তাকে (নারী) খুন করেছি, কারণ আমি তা করতে চেয়েছিলাম। ’

তার পরনে ছিল ক্যামোফ্লেজ পোশাক (সশস্ত্র বাহিনীর পোশাক)। সানগ্লাস, হেড ও মাস্ক পরিহিত ওই যুবককে আটক করতে গেলে দুই পুলিশ সদস্যকে লক্ষ্য করে স্বয়ংক্রিয় রাইফেল দিয়ে গুলি চালায় যুবক। তবে নিহত চতুর্থ আরেকজন যিনি একজন বৃদ্ধা তিনি কিভাবে নিহত হয়েছেন তার স্পষ্ট নয়।  

গ্রেপ্তার এড়াতে ওই যুবক তার বাবার বাসভবনে ঢুকে পড়ে। সেখানে চার ঘণ্টা অবস্থান করেন তিনি।  

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশন চ্যানেল এনএইচকে বলেছে, দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত ও একজন আহত হয়েছেন। তবে তারা গুলিতে নাকি ছুরিকাঘাতে হতাহত হয়েছেন তাৎক্ষণিকভাবে সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন অত্যন্ত কঠিন হওয়ায় জাপানে বন্দুক হামলার মতো ঘটনা একেবারে বিরল। দেশটিতে কেউ অস্ত্র কিনতে চাইলে, তাকে কঠোর প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে লাইসেন্স পেতে হয়।

তবে সম্প্রতি দেশটির সবচেয়ে বেশি মেয়াদী প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের ওপর বন্দুকহামলার ঘটনায় অস্ত্র আইন নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয় দেশটিতে।  

সূত্র: বিবিসি

news24bd.tv/aa