হিরো আলমের ওপর হামলার ঘটনায় আটক ২  

সংগৃহীত ছবি

হিরো আলমের ওপর হামলার ঘটনায় আটক ২  

অনলাইন ডেস্ক

ঢাকা-১৭ উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমের ওপর হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত সন্দেহভাজন দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগ আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশের গুলশান বিভাগ সূত্রে জানা যায়, হিরো আলমের ওপর হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত সন্দেহভাজন দুজন ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। আটক দুজনের একজনের নাম শেখ শহীদুল্লাহ বিপ্লব ও অপরজন সানোয়ার গাজী।

এর আগে আজ সোমবার বেলা সোয়া ৩টার দিকে রাজধানীর বনানী এলাকার বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে গেলে হিরো আলমের ওপর এ হামলা হয়। হিরো আলমের ওপর হামলাকারীরা নৌকা প্রতীকের ব্যাজ পরে ছিলেন।  
কি হয়েছিলো?

হিরো আলম বিকেল তিনটার দিকে বনানী বিদ্যানিকেতন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি একটি নারী ভোট কেন্দ্রে যান।

এ সময় তাকে  উদ্দেশ্য করে গালমন্দ করে কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে চলে যেতে বলেন। সেসময় কেন্দ্রটির দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যরা হিরো আলমকে ঘিরে রেখে স্কুলের ফটকের দিকে নিয়া যান। তখনও পিছু নেন দুর্বৃত্তরা।

কেন্দ্র থেকে বের হয়ে ১৬ নম্বর সড়কের দিকে দ্রুত এগুতে থাকেন হিরো আলম। এ সময় পুলিশ সদস্য না থাকায় দুর্বৃত্তরা হিরো আলমকে এলোপাতাড়ি তাঁরা মারধর করেন। পরে হিরো আলমের সঙ্গীরা তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসলে ২৩ নম্বর সড়কের ব্লক এ পর্যন্ত তাকে পেছন থেকে ধাওয়া করা হয়।

আরও পড়ুন : হাসপাতালে হিরো আলম, কী ঘটেছিল তখন?

এর আগে বনানী মডেল স্কুল ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে হিরো আলম বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে তার (একতারা প্রতীক) নির্বাচনী এজেন্টদের বের করে দেয়া, মারধর করা ও মুঠোফোন ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ করেন।  

সেসময় কাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, জানতে চাইলে হিরো আলম বলেন, আওয়ামী লীগের লোকজন। ডাইরেক্ট বলে তো দিলাম কে আমার এজেন্টদের বের করে দিচ্ছে। ওরা ছাড়া আর আমার এজেন্টদের কে বের করে দেবে?

এসময় হিরো আলম তার নিজের ওপর হামলার আশঙ্কা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, যেহেতু তার এজেন্টের গায়ে হাত দিয়েছে, তাহলে তার গায়েও যে হাত দেবে না, তার কী নিশ্চয়তা আছে?

ভোটের পরিবেশ নিয়ে হিরো আলম আরও বলেন, যেহেতু তার এজেন্ট বের করে দেওয়া হচ্ছে, তাহলে ভোট কীভাবে সুষ্ঠু হবে? যেখানে তার এজেন্টদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না, সেখানে ভোটাররা আসবেন কীভাবে? একটা আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমি শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকব। শেষ পর্যন্ত দেখতে চাই, তারা আমাদের ওপর কত অত্যাচার করে আজকে, কত জুলুম করে, কীভাবে আমাদের ভোটে হারায়?’

উল্লেখ্য, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট এলাকা ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১৫, ১৮, ১৯ ও ২০ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত ঢাকা-১৭ আসনের ভোটার ৩ লাখ ২৫ হাজার ২০৫ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৫৩ হাজার ৫৮০। ১২৪টি কেন্দ্রের ৬০৫টি কক্ষে ভোট গ্রহণ হয়।

ঢাকা-১৭ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮ জন প্রার্থী। তাদের মধ্যে দলীয় প্রার্থী হলেন আওয়ামী লীগের মোহাম্মদ আলী আরাফাত, জাতীয় পার্টির সিকদার আনিসুর রহমান, জাকের পার্টির কাজী মো. রাশিদুল হাসান, তৃণমূল বিএনপির শেখ হাবিবুর রহমান, বাংলাদেশ কংগ্রেসের রেজাউল ইসলাম স্বপন ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের আকবর হোসেন।
এ ছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর আশরাফুল আলম (হিরো আলম) এবং তারিকুল ইসলাম।

News24bd.tv/AA