বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ২৮ মিনিট আগে

কুমিল্লার সড়কে প্রাণ গেল ৩ জনের

হুমায়ূন কবির জীবন▐ কুমিল্লা প্রতিনিধি

কুমিল্লার সড়কে প্রাণ গেল ৩ জনের

কুমিল্লার চান্দিনায় দু’টি মাইক্রোবাস ও বালুবাহী ট্রাকের সংঘর্ষে দুই কলেজ ছাত্রীসহ ৩ নারী নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় শিশু সহ আহত হয়েছে আরও ১১জন।

আজ (১০ অক্টোবর, বুধবার) দুপুর পৌনে ২টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গোবিন্দপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলো- দেবিদ্বার উপজেলার প্রেমু গ্রামের আব্দুল ওহাবের মেয়ে পপি আক্তার (১৮), একই গ্রামের মরিয়ম আক্তার মুনমুন (১৮)। তারা উভয়ই সে চান্দিনা মহিলা ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী।নিহত অপরজন হলো মনোহরগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের লাভলী আক্তার (২৮)।

আহতরা হলো-  ময়নামতি পরিজপুর এলাকার আব্দুল কাইয়ূম (৩৫), মনোহরগঞ্জ এলাকার মহিউদ্দিন (২৫), সামছুল হুদা (৪৫), মনোহরগঞ্জ উপজেলাধীন দুর্গাপুর গ্রামের রাফি (৫), রাহিমা (৫৫), ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার রসুলপুর গ্রামের রাসেলসহ (২৫)। আহত বাকি ৫ জনের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

মাইক্রোবাস যাত্রী আহত সামছুল হুদা জানান, তিনি চান্দিনা বাসস্ট্যান্ড থেকে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট যাওয়ার উদ্দেশ্যে মাইক্রোবাসে উঠেন। ওই মাইক্রোবাসে কলেজ ছাত্রীসহ আরও অন্তত ১০জন ছিল। গোবিন্দপুর স্টেশনে পৌঁছার পর যাত্রী নামানোর জন্য গাড়িটি থামে। একই সময় অপর একটি মাইক্রোবাস ওভারটেকিং করছিল। এ সময় পিছন থেকে ছুটে আসা দ্রুতগামী বালুবাহী ট্রাক দু’টি মাইক্রোবাসকে ধাক্কা দিলে এ ঘটনা ঘটে।

ময়নামতি হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারাধন চন্দ্র দাস জানান, একটি বড় মাইক্রোবাস চান্দিনা থেকে ক্যান্টনমেন্ট যাচ্ছিল। অপরটি বিদেশি যাত্রী নিয়ে ঢাকা থেকে মনোহরগঞ্জ যাচ্ছিল। মাইক্রোবাসের যাত্রী নামানোর সময় পিছন থেকে ট্রাক ধাক্কা দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে লাভলী আক্তার নিহত হয়।  

বাকিদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতাল ও ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে নেওয়া হয়। 

কুমেক হাসপাতালে নেওয়ার পর পপি আক্তার ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে মুনমুন নিহত হয়। দুর্ঘটনা কবলিত মাইক্রোবাসগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। তবে ঘাতক ট্রাকটি আটক করা সম্ভব হয়নি বলে জানান এসআই হারাধন।  



জীবন▐ অরিন▐ NEWS24

মন্তব্য