সিভিল ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি বিএনপির বিশেষ বার্তা

সংগৃহীত ছবি

সিভিল ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি বিএনপির বিশেষ বার্তা

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে প্রজাতন্ত্রের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর চাকরি সুরক্ষিত রাখার নিশ্চয়তা দিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তাদের বিরুদ্ধে দলীয় বিবেচনায় কিংবা আক্রোশমূলক কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বা কাউকেই তা করতে দেওয়া হবে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।   

মঙ্গলবার (২৫ জুলাই) রাতে এক বিবৃতিতে এ কথা জানান তিনি। রাজধানীর গুলশানের বাসায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার পরই এমন বিবৃতি দিল দলটি।

বিএনপি ক্ষমতায় গেলে আওয়ামী লীগের শাসন আমলে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরিচ্যুতি, এমনকি জেল-জরিমানার মতো পরিস্থিতির শিকার হতে হবে—এমন প্রচারণা নজরে আসার পরিপ্রেক্ষিতে এই বিবৃতি দেওয়া কথা জানায় বিএনপি।  

বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দলের পক্ষ থেকে আমরা সুস্পষ্টভাবে বলতে চাই, জনগণের সমর্থনে যদি বিএনপি দেশ পরিচালনার সুযোগ পায়, তাহলে প্রজাতন্ত্রের সব কর্মকর্তা-কার্মচারীর চাকরির সুরক্ষা নিশ্চিত করা হবে। কোনো সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে দলীয় বিবেচনায় কিংবা আক্রোশমূলক কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না বা কাউকেই তা করতে দেওয়া হবে না। গত ১৫ বছর যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে অন্যায়ভাবে চাকরিচ্যুত, বাধ্যতামূলক অবসর প্রদান, দীর্ঘদিন ওএসডি রাখা এবং পদোন্নতি বঞ্চিত করা হয়েছে, তাদের প্রতিও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা হবে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী যেসব কর্তৃপক্ষের আদেশে কিংবা চাপে পড়ে বিতর্কিত কাজ করতে বাধ্য হয়েছেন, যা প্রচলিত আইন ও বিধি অনুযায়ী অন্যায়, অবৈধ ও বেআইনি বলে পরিগণিত হবে, সেসব কর্মকর্তা-কর্মচারীর উদ্দেশে বিএনপির আহ্বান হলো—এখন থেকে তারা যদি আর এ ধরনের অন্যায়, অবৈধ ও বেআইনি কোনো কাজ না করেন, তাহলে তাদের আগের ভূমিকা সহানুভূতি ও ইতিবাচক দৃষ্টিতে বিবেচনা করা হবে। ’  

মির্জা ফখরুল সরকারি কর্মকর্তা (আচরণ) বিধি ১৯৭৯ উল্লেখ করে বলেন, ‘এই বিধি অনুযায়ী সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কেবল আইনানুগ আদেশ ও নির্দেশ মেনে চলতে বাধ্য। কিন্তু বেআইনি আদেশ মানা বা বাস্তবায়নে বাধ্য নন। এ দেশের সন্তান হিসেবেও দেশে আইনের শাসন সমুন্নত রাখা আমাদের সবার কর্তব্য। ’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি একান্তভাবেই প্রত্যাশা করে, সরকারি কর্মকর্তা-কার্মচারীরা কোনো দল বা গোষ্ঠীর স্বার্থে কাজ না করে প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হিসেবে সততা ও নিরপেক্ষতা বজায় রেখে দেশ ও জনগণের স্বার্থে দায়িত্ব পালন করবেন। ’

News24bd.tv/AA