রবিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ০২ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট আগে

টানা বৃষ্টিতে প্লাবিত খুলনার নিম্নাঞ্চল

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

টানা বৃষ্টিতে প্লাবিত খুলনার নিম্নাঞ্চল

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে খুলনায় থেমে থেমে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হয়ে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শনিবার দুপুরেও হালকা বৃষ্টিপাতের সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া বইয়ে যাচ্ছিলো। এতে নগরীর নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে চরম দুর্ভোগ পড়েছেন মানুষ।  

এদিকে, খুলনা শহরে ওয়াসায় খোঁড়াখুঁড়ির কারণেও নিম্নাঞ্চলে ব্যস্ততম সড়কগুলোতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতায় চরম ভোগান্তিতে রয়েছে নগরবাসী। উপজেলাগুলোতে ভারি বৃষ্টিপাতে তলিয়ে গেছে বিস্তীর্ণ এলাকার ফসলি জমি। নদ-নদীতে বৃদ্ধি পেয়েছে জোয়ারের পানি। ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে ওয়াপদার বেড়িবাঁধ।  

খুলনা আঞ্চলিক আবহাওয়া অধিদপ্তরের ইনচার্জ মো. আমিরুল আজাদ জানান, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে খুলনা অঞ্চলে টানা মাঝারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে। শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শনিবার সকাল ৯টা পর্যন্ত খুলনায় ১৯৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রের্কড করা হয়েছে। মংলা সমুদ্র বন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত ও নৌ-বন্দরগুলোকে দুই নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, টানা বৃষ্টিতে খুলনা মহানগরীর শান্তিধাম মোড়, ফারাজিপাড়া, শামসুর রহমান রোড, রয়্যালের মোড়, কেডিএ এভিনিউ, পিটিআই, নিরালা, বাগমারা, ডাকবাংলা, রূপসা স্ট্যান্ড রোডসহ বিভিন্ন এলাকা তলিয়ে গেছে।

নগরীর বিভিন্ন সড়কে হাঁটু সমান পানি জমে সৃষ্টি হয়েছে জলাবদ্ধতার। অনেকের ঘরবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বৃষ্টির পানি প্রবেশ করায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন নিম্নাঞ্চলের হাজারো পরিবার। বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে নগরীর অধিকাংশ স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিলো কম। ভাসমান মানুষের কষ্টের সীমা নেই। দিনভর বিরামহীন বৃষ্টিতে এক প্রকার বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে খুলনার জনজীবন। 

অপরদিকে ভারি বর্ষণের কারণে মংলা বন্দরে অবস্থান করা জাহাজে পণ্য ওঠানামার কাজ বন্ধ রয়েছে। এছাড়া বৈরী আবহাওয়ায় মাছ ধরার ট্রলার নিরাপদ অবস্থানে রয়েছে।

মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাস্টার মো. ওয়ালিউল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, বন্দরে তিন নম্বর সংকেত চলছে। বন্দরে বর্তমানে সার, চাল, কন্টেইনার, এলপিজি গ্যাসসহ ১০টি জাহাজ অবস্থান করছে। বৃষ্টির মধ্যে এসব জাহাজে পণ্য ওঠানামার কাজ বন্ধ রয়েছে।

মন্তব্য