ছাগল চুরি করে কারাগারে যুবদল নেতা

সংগৃহীত ছবি

ছাগল চুরি করে কারাগারে যুবদল নেতা

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে ছাগল চুরির মামলায় বাবুল মু‌ন্সি (৪৫) না‌মের এক যুবদল নেতাকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। বাবুল উপ‌জেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক পদে রয়েছেন।

বুধবার (৯ আগস্ট) মির্জাগঞ্জ উপ‌জেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জামিনের আবেদন করলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক বাবুল মু‌ন্সি‌কে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। বাবুল মু‌ন্সি মির্জাগঞ্জ উপ‌জেলার পূর্ব সুবিদখালী গ্রামের মো. আবদুল খালেক মিয়ার ছেলে।

জেলা যুবদলের সভাপতি ম‌নিরুল ইসলাম লিটন বলেন, লোক মুখে ঘটনা শুনেছি ত‌বে সত্য মিথ্যা যাচাই কর‌তে হ‌বে। এ‌টি ষড়যন্ত্রও হ‌তে পা‌রে।

জানা গেছে গত ২৫ জানুয়ারি মির্জাগ‌ঞ্জের পার্শ্ববর্তী বরগুনা জেলার আমতলী থানার কেওরা বুনিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো. ইউসুফ হাওলাদার বাদী হয়ে মির্জাগঞ্জ থানায় বাবুল মু‌ন্সিসহ আ‌রেও ১০ জন‌কে আসামি করে ছাগল চুরির অভিযোগে এক‌টি মামলা দা‌য়ের করেন। সেই মামলা‌য় বুধবার বাবুল মু‌ন্সি আদাল‌তে জামিনের আবেদন করেন।

মামলার বিবরণে বলা হয়, ইজি বাইক নিয়ে ঘোরার ছলে বিভিন্ন স্থান থেকে গরু, ছাগল, গাড়ির ব্যাটারি চুরি করতো স্থানীয় এক‌টি চোর চক্র। সেই চোর চক্রের চারজন সদস্য চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি মির্জাগঞ্জ উপজেলার রানীপুর বাজারে ইজিবাইক এবং ছাগলসহ পুলিশের হাতে আটক হয়।

প‌রে পু‌লি‌শের জিজ্ঞাসাবা‌দে বাবুল মু‌ন্সির নাম উঠে আসে। একপর্যায়ে পু‌লি‌শের কাছে আট‌ককৃতরা জানান যে, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী চুরির মালামাল বাবুল মু‌ন্সির কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। বাবুল মু‌ন্সি কম দামে সেই ছাগল ক্রয় করে তা আবার বেশি দামে বিক্রি করে।

এরপরই তদন্তে নামে পুলিশ। তদন্তকারী কর্মকর্তা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড ও আশ্রয়দাতা হিসেবে বাবুল মু‌ন্সি‌কে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। পরবর্তীতে আদালত অভিযোগ আমলে নিয়ে বাবুল মু‌ন্সির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

news24bd.tv/FA