ছাত্রলীগ নেতার হামলায় শিক্ষকসহ আহত ৬

ছাত্রলীগ নেতার হামলায় শিক্ষকসহ আহত ৬

অনলাইন ডেস্ক

লক্ষ্মীপুরের লাহারকান্দিতে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে স্কুলশিক্ষক মো. কামাল হোসেনসহ তার পরিবারের ৬ জনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে।  

সোমবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে সদর উপজেলার লাহারকান্দি ইউনিয়নের পশ্চিম সৈয়দপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীন সওদাগর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

লক্ষ্মীপুর সদরের লাহারকান্দি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক ছাত্রলীগ নেতা মো. মনোয়ার হোসেন শাহীনের বিরুদ্ধে এ হামলার অভিযোগ উঠেছে।

হামলায় আহত শিক্ষক কামালকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এছাড়াও আহতদের সদর হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।  

আহত কামাল হোসেন চাঁদখালী এ. রব উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও পশ্চিম সৈয়দপুর গ্রামের ধনু মিয়ার ছেলে।

অপর আহতরা হলেন- কুলসুম বেগম, সালেহা বেগম, রানী বেগম, রোকেয়া বেগম, জান্নাতুল ফেরদৌস টিনা।

পুলিশ ও আহতদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, লাহারকান্দির পশ্চিম সৈয়দপুর গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ওয়ারিশদের সঙ্গে একই বাড়ির আলী আকর ও তাদের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

 

বিরোধকৃত জমিতে সম্প্রতি মোহাম্মদ আলীর দুই ছেলে রাজু ও আনোয়ার ঘর করতে গেলে আলী আকবরের ছেলে জামাল হোসেন থানায় একটি অভিযোগ দেন।  

সোমবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে ওই বিরোধকৃত জমিতে পুনরায় ঘরের কাজ করতে গেলে জামালের স্ত্রী কুলসুম বেগম বাধা দেয়। এতে মোহাম্মদ আলীর ছেলে ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার দলবল নিয়ে এসে কুলসুমকে বেদম মারধর করে। খবর পেয়ে কুলসুমের চাচাতো ভাশুর স্কুলশিক্ষক কামাল বাড়িতে আসেন। এ সময় হামলাকারীরা তার উপরও হামলা চালায়। তাকে কুপিয়ে জখম করা হয়। শিক্ষক কামালকে বাঁচাতে গিয়ে তাদের পরিবারের আরও চারজন নারী হামলার শিকার হন।

শিক্ষক কামাল হোসেন জানান, ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার আমার চাচাতো ভাইয়ের স্ত্রীর ওপর হামলার চালিয়েছে। খবর পেয়ে আমি বাড়িতে আসলে তারা আমার ওপরও হামলা করে। মনোয়ার আমাকে লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেছে। আমার পরিবারের নারী সদস্যদের মারধর করে তারা।  

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা মনোয়ার হোসেন শাহীনের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক শামীম হোসেন আফজাল বলেন, মারামারির ঘটনায় আহত হয়ে একই পরিবারের পাঁচ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকায় রেফার করা হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশিকুর রহমান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি। আহতরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। লিখিত অভিযোগ দিলে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

এই রকম আরও টপিক