নিরাপত্তা সংলাপেও নির্বাচন ও মানবাধিকার পরিস্থিতি জানতে চেয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

সংগৃহীত ছবি

নিরাপত্তা সংলাপেও নির্বাচন ও মানবাধিকার পরিস্থিতি জানতে চেয়েছে যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু করার বিষয়ে বেশ তৎপর যুক্তরাষ্ট্র। ইতোমধ্যে ভিসানীতিও ঘোষণা করেছে দেশটি। দুই দেশের মধ্যে নির্বাচন ও মানবাধিকার ইস্যু নিয়ে যখন কূটনীতি জমে উঠেছে, তখন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হলো বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র নিরাপত্তা সংলাপ। তবে এই সংলাপেও সেই নির্বাচন ও মানবাধিকার ইস্যু নিয়ে কথা বলেছে দেশটি।

 

মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের নবম নিরাপত্তা সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মহাপরিচালক (উত্তর আমেরিকা অনুবিভাগ) খন্দকার মাসুদুল আলম। আর যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্ব দেন দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তরের রাজনৈতিক সামরিকবিষয়ক বিভাগের উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিরা রেজনিক।

পরে মিরা রেজনিক পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে আলোচনায় বাংলাদেশের আগামী নির্বাচন এবং মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে জানতে চেয়েছেন।

 

মিরা রেজনিক দুই দেশের নিরাপত্তা সংলাপে যোগ দিতে গত সোমবার ঢাকায় আসেন। ওই দিন তিনি ঢাকায় মার্কিন দূতাবাসে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তিনি জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে বাংলাদেশের পরিস্থিতি কেমন তা জানতে চেয়েছেন। বিশেষ করে নির্বাচন সামনে রেখে নিরাপত্তা পরিস্থিতি কেমন এবং এই পরিস্থিতিকে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা কীভাবে দেখেন—এসব নিয়ে তিনি তাঁদের কাছে প্রশ্ন রাখেন এবং তাঁদের কথা শুনেছেন।

ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের রাজনৈতিক সামরিকবিষয়ক বিভাগের উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিরা রেজনিক পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। পরে মাসুদ বিন মোমেন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

নির্বাচন নিয়ে মিরা রেজনিক জানতে চেয়েছেন কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ‘নির্বাচনের ব্যাপারে তারা (যুক্তরাষ্ট্র) জানতে চেয়েছে, আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আমরা বলেছি যে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে আমরা বদ্ধপরিকর। নির্বাচন কমিশনের সক্ষমতা বাড়াতে সহযোগিতার প্রয়োজন হলে তারা তা দিতে রাজি আছে। ’

মানবাধিকার নিয়ে আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রসচিব বলেন, ‘সামগ্রিক নিরাপত্তার কথা যদি বলি, সেখানে তো মানবাধিকার এসেই যায়। সেখানে আমাদের যেসব বাধ্যবাধকতা রয়েছে, সেগুলো আমরা জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে পূরণ করছি। ’

পররাষ্ট্রসচিব বলেন, ‘ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের ইস্যুসহ সব ধরনের নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তারা চায় বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক যেন আরও গভীরতর হয়। অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক—সব দিকেই। আমরাও চাইছি তাদের সঙ্গে সম্পর্কে যেন কোনো দূরত্ব না থাকে। ’

র‌্যাবের ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার নিয়ে আলোচনা হয়েছে কি না জানতে চাইলে পররাষ্ট্রসচিব বলেন, ‘র‍্যাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার নিয়ে তারা আলোচনা করেছে। আমরা বলেছি, প্রতিটি মানবাধিকার লঙ্ঘনের যে অভিযোগ আসে, যে প্রতিবেদন আসে, প্রতিটিকেই আমরা বিবেচনায় নিই। আমরা আমাদের দেশে কোনো দায়মুক্তির সুযোগ রাখি না। একটা গুলি খরচ করলেও জবাবদিহি করতে হয়। আমাদের বাহিনীর কেউ কিছু করলে প্রক্রিয়া অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়ে থাকে। আমরা র‍্যাবের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে লিখিতভাবে জবাব দিয়েছি। তাদের প্রক্রিয়ার মধ্যে সেটি আছে। এ নিয়ে আমরা সজাগ আছি, এখানে দায়মুক্তির কোনো সুযোগ নেই। আমরা চেয়েছি যে বিভিন্ন বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধিতে যে সহযোগিতা, সেটা যেন অব্যাহত থাকে। র‌্যাবের ওপর আপাতত নিষেধাজ্ঞা আছে। কিন্তু আমাদের পুলিশ বাহিনী, বিজিবি, কোস্টগার্ড এদের সবার সঙ্গে তাদের সহযোগিতা আছে। দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা আছে, সেগুলো অব্যাহত থাকবে। ’

বৈঠকে নিরাপত্তা সহযোগিতাকে সম্পর্কের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ, তথ্য আদান-প্রদান এবং যৌথ মহড়ার মাধ্যমে তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে মার্কিন পক্ষ বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনী ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার প্রতি সমর্থন পুনর্ব্যক্ত করেছে। সামুদ্রিক নিরাপত্তা বিষয়ে একসঙ্গে কাজ করার জন্য বাংলাদেশের আহ্বানে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে।

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনই দীর্ঘস্থায়ী রোহিঙ্গা সংকটের চূড়ান্ত সমাধান হিসেবে উল্লেখ করে বাংলাদেশ সমস্যা সমাধানে বৃহত্তর আন্তর্জাতিক সমর্থন চেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তা সম্প্রসারণে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে।

news24bd.tv/আইএএম