ভারত বিশ্বকাপে হামলার হুমকি

ভারত বিশ্বকাপে হামলার হুমকি

অনলাইন ডেস্ক

আসন্ন বিশ্বকাপে হামলার হুমকি দিয়েছেন খালিস্তানি নেতা গুরপত্তওয়ান্ত সিং পান্নুন। একটি অডিও বার্তায় তাকে হুমকি দিতে শোনা যায়।

ক্রিকেট বিশ্বকাপের আগে টানাপড়েন শুরু হয়েছে ভারত ও কানাডার সম্পর্কে। চলতি বছরের ১৮ জুন খালিস্তানপন্থী নেতা হরদীপ সিং নিজ্জারের খুনকে কেন্দ্র করে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক এখন তলানিতে।

দুই পক্ষের সরকার এর মধ্যে জড়িয়ে যাওয়ায় পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে। এবার এর মধ্যে জড়িয়ে গেল ক্রিকেট।

খালিস্তানি সংগঠন শিখ ফর জাস্টিসের (এসএফজে) অন্যতম নেতা গুরপত্তওয়ান্ত সিং পান্নুন সরাসরি আসন্ন বিশ্বকাপকে আক্রমণ করলো। বিশ্বকাপে হামলা করার হুমকি দিয়েছেন তিনি।

একটি অডিও বার্তায় তাকে হুমকি দিতে শোনা যায়।

৫ অক্টোবর ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মধ্যে ম্যাচ দিয়ে ভারতে এবারের বিশ্বকাপ শুরু হবে।

প্রথম ম্যাচটা হবে নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে। ফাইনাল ও ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ আয়োজনের দায়িত্বও পেয়েছে এ স্টেডিয়াম। এই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে বিশ্বকাপে আক্রমণের হুমকি দিলেন পান্নুন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে শোনা যায়, এক ব্যক্তি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও রাষ্ট্রদূত সঞ্জয় কুমার বর্মাকে আক্রমণ করছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে অসম্মান করার জন্য।

সেই ভিডিওতে যেই আওয়াজটা শোনা যায় সেটি পান্নুনের বলে জানা গেছে।

ভিডিওতে বলা হয়েছে, ‘নিজ্জারের খুনে, আমরা বুলেটের বদলে ব্যালট ব্যবহার করব। আমরা সহিংসতার বিরুদ্ধে ভোট ব্যবহার করব। এই অক্টোবরে ক্রিকেট বিশ্বকাপ হবে না। এটা হবে বিশ্ব সহিংসতা কাপের সূচনা। এই বার্তাটা দিচ্ছেন গুরপত্তওয়ান্ত সিং পান্নুন, এসএফজের জেনারেল কাউন্সিল। ’

ভিডিওতে শোনা যায়, ‘ভারত ও মোদি সরকার কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে নিন্দা করেছেন। আমরা পরামর্শ দিচ্ছি অটোয়াতে দূতাবাস বন্ধ করে দিন, নয়তো রাষ্ট্রদূতকে ফিরিয়ে নিন। ’

প্রসঙ্গত, দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক খারাপ হয় খালিস্তানি নেতা হরদীপ সিং নিজ্জারকে কানাডার একটি গুরুদ্বারের বাইরে গুলি করে মেরে ফেলায়। এরপর কিছুদিন আগে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ভারতের গুপ্তচর সংস্থাকে দায়ি করে এই খুনের জন্য। এরপর পাল্টা জবাব দেয় ভারত। ফলে দুই দেশের সম্পর্কের অবনতি হয়। এবার সেটার ছায়া এসে পড়ল ক্রিকেটে।

সূত্র : এই সময়

news24bd.tv/আইএএম