ইংলিশদের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের হার

ইংলিশদের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের হার

অনলাইন ডেস্ক

ইংলিশদের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ের কাছে তানজিদ তামিম ও মেহেদি হাসান মিরাজের দুর্দান্ত ব্যাটিং কাজে আসল না।  আগের ম্যাচে ভালো করা এই দুই ব্যাটার যে সংগ্রহ করেছিল তা সহজেই টপকায় ইংলিশরা। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ হেরেছে ৪ উইকেটের ব্যবধানে।

সোমবার গুয়াহাটিতে টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে ৩৭ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮৮ রান তুলে বাংলাদেশ।

যেখানে সর্বোচ্চ ৭৪ রান এসেছে মিরাজের ব্যাট থেকে। বৃষ্টি আইনে ইংল্যান্ডের জন্য লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৯৭ রানের। জবাবে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৪ ওভার ১ বলেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ইংলিশরা।

ইনিংসের শুরুতেই ডেভিড মালানকে ফেরান মুস্তাফিজুর রহমান।

অফ স্টাম্পের অনেক বাইরে করা বলে পা বাড়িয়ে খেলতে গিয়ে সেকেন্ড স্লিপে তানজিদ তামিমের হাতে ধরা পড়েছেন ডেভিড মালান। ৪ রান করা এই ইংলিশ ওপেনারকে ফিরিয়ে প্রথম ওভারেই উইকেটের স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ।

এরপর জনি বেয়ারস্টো রীতিমতো টর্নেডো বইয়ে দেন। এমন আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে ২১ বলেই প্রথম ফিফটির দেখা পায় ইংল্যান্ড।

চিন্তায় পড়া বাংলাদেশকে স্বস্তি এনে দেন ওই মুস্তাফিজই। পঞ্চম ওভারের প্রথম বলে বেয়ারস্টোকে বোল্ড করে ঝড় থামান। এই বাঁহাতি পেসারের দুর্দান্ত ইয়র্কারে ব্যাট নামানোর আগেই স্টাম্প ভেঙে যায়। সাজঘরে ফেরার আগে এই ওপেনারের ব্যাট থেকে এসেছে ২১ বলে ৩৪ রান। হ্যারি ব্রুককে বেশিক্ষণ থিতু হতে দেননি হাসান মাহমুদ। গুড ল্যান্থের ডেলিভারিতে ব্রুকের অফ স্টাম্প গুঁড়িয়ে দিয়েছেন এই টাইগার পেসার। ফলে ১৫ বলে ১৭ রানে শেষ হয়েছে ইংলিশ এই ব্যাটারের ইনিংস।

পরে নেমেই ঝড়ো ব্যাটিং শুরু করেন ইংলিশ অধিনায়ক জস বাটলার। তার ঝড় থামিয়েছেন শরিফুল ইসলাম। সীমানার কাছে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি। ফলে ৩০ রান করেই ফিরতে হয়েছে বাটলারকে।

লিয়াম লিভিংস্টোনকে থিতু হতে দেননি তাসকিন আহমেদ। তাসকিনের লেংথ বলে মিড অফে নাজমুল হোসেন শান্তর ডাইভিং ক্যাচে আউট হয়েছেন লিভিংস্টোন। তার ব্যাট থেকে এসেছে ১১ বলে ৭ রান। মঈন আলী উইকেটে এসে দ্রুত গতিতে রান তুলেছেন। দারুণ সব শটে পাত্তায়ই দেননি বোলারদের। শেষ পর্যন্ত ৩৯ বলে ৫৬ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন তিনি।

এরপর বাকিটা পথ ক্রিস উইকসকে নিয়ে নিরাপদেই পাড়ি দিয়েছেন জো রুট। এক প্রান্ত আগলে রাখা এই ব্যাটার ৪০ বলে ২৬ রান করে দলকে জিতেয়ে মাঠ ছেড়েছেন। বাংলাদেশের হয়ে ২৩ রানে ২ উইকেট শিকার করে সেরা বোলার মুস্তাফিজ। তাছাড়া একটি করে উইকেট পেয়েছেন হাসান মাহমুদ, শরিফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ ও নাসুম আহমেদ।

এর আগে ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে আরেকবার ব্যর্থ হয়েছেন উইকেটকিপার ব্যাটার লিটন দাস। বাউন্ডারি মেরে দারুণ কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি। তবে রিস টপলির বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন পরমুহূর্তেই। প্যাভিলিয়নে ফেরার আগে করেছেন ৬ বলে ৫ রান।

এরপর তিনে ব্যাট করতে নেমে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি দুর্দান্ত ফর্মে থাকা নাজমুল হোসেন শান্ত। টপলির বলে থার্ডম্যানে গাস অ্যাটকিনসনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন তিনি। তার আগে করেছেন ১১ বলে ২ রান।

দারুণ শুরুর পর এক প্রান্ত আগলে রেখে ব্যাট করছিলেন তানজিদ তামিম। টপ অর্ডারের বাকি দুই ব্যাটার ব্যর্থ হলেও দলকে কক্ষপথেই রেখেছিলেন জুনিয়র তামিম। তবে ১৬তম ওভারে তাকে আটকে দিলেন মার্ক উড। এই পেসারের অফ স্টাম্পের বাইরের বল স্টাম্পে টেনে এনে বোল্ড হয়েছেন তামিম। সাজঘরে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে এসেছে ৪৪ বলে ৪৫ রান।

ব্যাট হাতে ব্যর্থ হয়েছেন মুশফিকুর রহিম। খানিকটা শর্ট লেন্থে পড়া বল এতটাই নিচু হয়েছে যে মুশফিক সেটা ব্যাটে খেলতেই পারেননি। আদিল রশিদের নিচু হওয়া বলে খানিকটা বোকাই বনেছেন এই অভিজ্ঞ ব্যাটার। ২১তম ওভারে সাজঘরে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে এসেছে ১৫ বলে ৮ রান।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে লোয়ার মিডল অর্ডারে ব্যাট করেছিলেন মেহেদি হাসান মিরাজ। আর বিশ্বকাপ মিশনে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাটিং করেছেন তিনে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেই ম্যাচে অপরাজিত ফিফটি পেয়েছিলেন। আজ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে নামেন চারে। এখানেও সফল তিনি। ইতোমধ্যে ৬২ বলে ফিফটি তুলে নিয়েছেন।

মিরাজ এক প্রান্তে দুর্দান্ত ব্যাটিং করলেও অপর প্রান্তে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাচ্ছে বাংলাদেশ। উইকেটে থিতু হয়ে এবার ফিরেছেন মাহমুদউল্লাহ। স্ট্রাইকরেট বাড়াতে গিয়ে বিপদ ডেকে এনেছেন তিনি। আদিল রশিদকে ডাউন দ্য উইকেটে এসে উড়িয়ে মারতে গিয়ে কাউ কর্নারে ধরা পড়েছেন এই অভিজ্ঞ ব্যাটার। সাজঘরে ফেরার আগে তার ব্যাট থেকে এসেছে ২১ বলে ১৮ রান।

মাহমুদউল্লাহ সাজঘরে ফেরার পরই বৃষ্টি হানা দেয়। বৃষ্টির কারণে ঘণ্টা দুয়েকের জন্য বন্ধ থাকে খেলা। অবশেষে বাংলাদেশ সময় অনুযায়ী ৮ টায় আবারও শুরু হয় খেলা। ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমিয়ে করা হয় ৩৭ ওভার।  শেষমেশ ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮৮ রানের পূঁজি পায় টাইগাররা।

এই রকম আরও টপিক