ইসরায়েল থেকে মুখ ফিরিয়ে ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করছে সৌদি 

ইসরায়েল থেকে মুখ ফিরিয়ে ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার করছে সৌদি 

অনলাইন ডেস্ক

ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সংঘাতের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার দীর্ঘদিনে একটি উদ্যোগ স্থগিত করেছে সৌদি আরব। এদিকে নানা হিসাব-নিকাষ কষে ফিলিস্তিনের মিত্ররাষ্ট্র ইরানের সঙ্গে সৌদি আরব সম্পর্ক জোরদার করতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন সৌদির কর্মকর্তারা। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্রের বরাতে শনিবার এ তথ্য জানিয়েছে ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি।

ইরানের সরকারি বার্তা সংস্থা ইরনা জানায়, ফিলিস্তিন ইস্যুতে গত ১১ অক্টোবর প্রথমবাবের মতো ফোনালাপ করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান।

চীনের মধ্যস্থতায় মধ্যপ্রাচ্যের এই দুই পরাশক্তির সম্পর্ক পুরোপুরি জোড়া লাগার পর গত বুধবারই তারা প্রথমবারের মতো আলাপ করেছেন। দুই দেশের নেতা টানা ৪৫ মিনিট ফোনে কথা বলেছেন।

গত ১১ অক্টোবর এক এক্সবার্তায় ইরানের প্রেসিডেন্টের রাজনৈতিকবিষয়ক ডেপুটি চিফ অব স্টাফ মোহাম্মদ জামশিদি বলেছেন, ইব্রাহিম রাইসি ও মোহাম্মদ বিন সালমান প্রথমবারের মতো ফোনে কথা বলেছেন। এ সময় দুই নেতা ফিলিস্তিনের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ বন্ধ করার প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত হয়েছেন।

একই সঙ্গে তারা ইসলামী ঐক্যের ওপর জোর দিয়েছেন। আলোচনায় তারা এ বিষয়ে ঐকমত্য পোষণ করেছেন যে, ফিলিস্তিনে হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের সবুজ সংকেত এবং সেখানে ইসরায়েলের অপরাধ তাদের জন্যই ভয়াবহ নিরাপত্তাহীনতার কারণ হবে।

তবে গত ৭ অক্টোবর হামাসের হামলার আগে পরিস্থিতি মোটেও এমন ছিল না। যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যস্থতায় ইসরায়েলের সঙ্গে সৌদি আরবের শান্তিচুক্তি নিয়ে অনেক দূর এগিয়ে যাওয়ার কথা দুই দেশের কর্মকর্তারাই বলেছিলেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, তেলআবিবের সঙ্গে শান্তিচুক্তির বিনিময়ে সৌদির নিরাপত্তা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বড় আকারের নিশ্চয়তা চায় রিয়াদ। এমনকি এ কারণে ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার দাবিও ছাড় দিতে রাজি সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।

তবে শনিবার আরেক প্রতিবেদনে রয়টার্স জানিয়েছে, ফিলিস্তিনিদের পাশ কাটিয়ে কোনো চুক্তি করলে তা আরবদের ক্ষুব্ধ করতে পারে। ফলে পুরো অঞ্চলে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়তে পারে।

news24bd.tv/আইএএম