কঠিন হুঁশিয়ারি দিল হামাস

কঠিন হুঁশিয়ারি দিল হামাস

অনলাইন ডেস্ক

গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের চলমান পাশবিক ও নির্বিচার হামলা ‘গোটা মধ্যপ্রাচ্যকে অস্থিতিশীল’ করে তুলবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস। স্বাধীনতাকামী সংগঠনটি বলেছে, কী ঘটবে তা কারও পক্ষে ধারণা করাও সম্ভব নয়।

হামাসের পলিটব্যুরো প্রধান ইসমাইল হানিয়া বৃহস্পতিবার রাতে টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে এ হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।  

তিনি বলেন, ইসরাইলি হামলা শুরু হওয়ার ২০ দিন পরও হামাসের সামরিক শাখা কাসসাম ব্রিগেডের নেতৃত্বে প্রতিরোধ যোদ্ধাদের পাল্টা হামলার মাত্রা বেড়ে গেছে এবং তা আরো বাড়তে থাকবে।

ইরানি গণমাধ্যম পার্সটুডে জানায়, হানিয়া দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, গাজার প্রতিরোধ যোদ্ধারা ‘দারুণভাবে’ যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে এবং তারা তাদের লক্ষ্যে অটল ও অবিচল রয়েছে। তিনি গাজার ওপর ইসরায়েলি বর্বর আগ্রাসন বন্ধে তেল আবিবের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে সম্ভাব্য সব কিছু করার জন্য মিত্র ও বন্ধুপ্রতীম দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান।

হামাসের সর্বোচ্চ নেতা প্রতিরোধ আন্দোলনকে ‘জাতীয় স্বাধীনতাকামী আন্দোলন’ হিসেবে অভিহিত করে বলেন, এই আন্দোলন ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড ও এর অধিবাসীদের মুক্ত করার লক্ষ্যে লড়াই করছে। হামাসকে ‘সন্ত্রাসী’ বলে ইসরায়েলি সরকার ও তার পশ্চিমা দোসররা যে প্রচারণা চালাচ্ছে তার তীব্র সমালোচনা করেন ইসমাইল হানিয়া।

তিনি বলেন, যারা গাজার ওপর বর্বরোচিত আগ্রাসনকে সমর্থন করছে এবং চলমান গণহত্যার ব্যাপারে নীরবতা অবলম্বন করছে তারাই বরং সন্ত্রাসী। হামাসের ন্যায়সঙ্গত প্রতিরোধ আন্দোলনের প্রতি যারা উচ্চকণ্ঠে সমর্থন জানিয়েছে তাদের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

হামাসের পলিটব্যুরো প্রধান মিশরের সঙ্গে রাফাহ ক্রসিং’সহ সকল ক্রসিং খুলে দিয়ে গাজায় অতি জরুরি পণ্য পৌঁছানোর পথ করে দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।  হানিয়া বলেন, গাজায় কী প্রবেশ করবে আর কী প্রবেশ করবে না তা ইহুদিবাদী শত্রু  নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। ভাষণের শেষাংশে তিনি গাজার বিরুদ্ধে ইসরাইলি আগ্রাসন বন্ধের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ চালিয়ে যেতে বিশ্বের স্বাধীনতাকামী মানুষের প্রতি আহ্বান জানান।

news24bd.tv/তৌহিদ

এই রকম আরও টপিক