শপিং মলে চোরাই মোবাইল বিক্রির মূলহোতাসহ গ্রেপ্তার ৫

শপিং মলে চোরাই মোবাইল বিক্রির মূলহোতাসহ গ্রেপ্তার ৫

নিজস্ব প্রতিবেদক

বড় বড় শপিং মলে বিক্রি হচ্ছে চোরাই মোবাইল। সংঘবদ্ধ এমন অপরাধী চক্রের মূলহোতাসহ পাঁচ জনকে গ্রেপ্তারের পর এমন তথ্য জানায় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সাইবার দক্ষিণ বিভাগ। এসময় শতাধিক চোরাই মোবাইল, আইএমইআই কাটার ডিভাইসসহ অন্যান্য জিনিস উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (১ নভেম্বর) সংবাদ সম্মেলেন মামলার বিবরণ তুলে ধরে পুলিশ।

এতে বলা হয়, গত ৩০ অক্টোবর সন্ধ্যায় উত্তরখান ও যমুনা ফিউচার পার্ক মার্কেট থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এ বিষয়ে এডিসি কাজী মাকসুদা লিমা নিউজ টোয়েন্টিফোরকে জানান, তারা মোবাইল চোরাই চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে। আসামিরা দীর্ঘদিন যাবত চোরাই মোবাইল সংগ্রহ, মজুদ বিক্রি করতো।

গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা হলো, আল আমিন, দিপু, আলাউদ্দিন (বাবলু) ওরফে জাপান বাবু, আলী বেপারী এবং ইউনুছ আলী শুভ।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সাইবার দক্ষিণ বিভাগ জানিয়েছে, আসামিরা উত্তরা, আব্দুল্লাহপুর এবং টঙ্গী এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত মোবাইল চুরি, ছিনতাই ও পকেটমারের মতো অপরাধ করে আসছে। বিভিন্ন রাস্তা বা যানবাহনের মধ্যে থেকে তারা এইসব মোবাইল ছিনতাই করে সংগ্রহ করে। ব্র্যান্ডভেদে ৪-৬ হাজার টাকায় বিক্রয় করতো এগুলো।

গোয়েন্দা বিভাগ জানায়, চক্রের অন্যরা এসব মোবাইল ৮-১০ হাজার টাকায় বিক্রয় করতো। দিপু, শুভ, শরীফ, শ্যামলসহ ও অন্যান্যদের কাছ থেকে বিভিন্ন রকমের ছিনতাইকৃত মোবাইল, ল্যাপটপ, ডিএসএলআর ক্যামেরা কিনে নিতো। প্রতিদিন এইভাবে মোবাইল ও অন্যান্য ইলেক্ট্রনিক্স সামগ্রী সংগ্রহ করে সপ্তাহান্তে মাস্টারমাইন্ড আল-আমিন এবং শাহজাহানের কাছে ১২-১৪ হাজার টাকায় বিক্রয় করতো।

পুলিশ জানিয়েছে, চক্রের মূলহোতাদের বড় বড় শপিং কমপ্লেক্সে মোবাইলের দোকান রয়েছে। আসামি আল-আমিন এইসব মোবাইল ক্রয় করে নিজস্ব ল্যাপটপ ও সফটওয়ারের মাধ্যমে আইএমইআই পরিবর্তন করে ব্যবহৃত সেকেন্ড হ্যান্ড ফোন হিসেবে নিজেদের দোকানে রেখে ২৫-৩০ হাজার টাকায় সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রয় করতো। এছাড়াও সে ভারত, দুবাই, মালয়েশিয়া ও অন্যান্য দেশ থেকে চোরাই মোবাইল বাংলাদেশে এনে বিক্রি করে আসছে।

news24bd.tv/FA

এই রকম আরও টপিক