ইমিগ্রেশনের জন্য আর যেতে হবে না ঢাকায় : রেলমন্ত্রী

ইমিগ্রেশনের জন্য আর যেতে হবে না ঢাকায় : রেলমন্ত্রী

ভারতের সাথে বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা সুগম করতে এখন উত্তরবঙ্গের মানুষকে যেতে হবে না ঢাকায়। নীলফামারীর চিলাহাটি থেকে ৪টি কোচ যোগে অনায়াসে মানুষ যেতে পারবে ভারতে। আবার ভারত থেকে চিলাহাটিতে এসে নামতে পারবেন যাত্রীরা।

শনিবার (৪ নভেম্বর) দুপুরে ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ী ইউনিয়নের চিলাহাটিতে আইকনিক স্টেশন ভবন উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন (এমপি)।

তিনি বলেন, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে জাতীয় সংসদ নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা হবে। কিন্তু তার আগেই নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে জামায়াত-বিএনপিরা। অবরোধের নামে তারা জ্বালাও পোড়াও আর ভাঙচুর করছে।

ভারতের সাথে বাংলাদেশের রেল সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে নীলফামারীর চিলাহাটি বর্ডারের মধ্যে ব্রডগেজ রেলপথ নির্মাণ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ১৫ কোটি ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় নবনির্মিত চিলাহাটি আইকনিক স্টেশন ভবন, প্ল্যাটফর্ম, প্ল্যাটফর্ম শেড, ফুট ওভার ব্রিজ ও ফাংশনাল ভবন।

২০১৯ সালের জুনে শুরু হয় স্টেশনের আধুনিকায়নের কাজ। পরে করোনা মহামারি ও নকশা জটিলতার কারণে দুই বছর বন্ধ থাকে নির্মাণকাজ। নকশা সংশোধন করে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক স্টেশনের আদলে চিলাহাটি রেলস্টেশনের আইকনিক ভবনের নির্মাণকাজ শুরু হয় ২০২১ সালে। আধুনিক যাত্রীর সুবিধার্থে টিকিট কাউন্টার, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির বিশ্রামাগার পাশাপাশি থাকছে রেলওয়ের কার্যক্রম চালানোর জন্য বিভিন্ন বিভাগের অফিস। ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় থাকছে ব্যাংক ও রেস্তোরাঁ।

এলাকাবাসীরা জানান, দেশের অভ্যন্তরে ইমিগ্রেশন না থাকায় শুধু ঢাকায় ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস কার্যক্রম সম্পন্ন করে যাতায়াত করতে হয় চিলাহাটি হয়ে শিলিগুড়ির এই মিতালী এক্সপ্রেসকে।

বাংলাদেশ-ভারত যোগাযোগ স্থাপনকারী এ ট্রেনে যাতায়াতের জন্য উত্তরবঙ্গে ইমিগ্রেশন চালুর দাবি ছিলো শুরু থেকেই। ইমিগ্রেশন পয়েন্ট চালু হলে চিলাহাটি হয়ে ভারতের শিলিগুড়ি পর্যন্ত চলাচল করতে পারবে এই স্টেশন থেকে যাত্রীরা। এতদিন মিতালী এক্সপ্রেসে যাতায়াতের জন্য ঢাকা থেকে ইমিগ্রেশন হলেও সেই সুবিধা চিলাহাটি থেকেই পাবেন উত্তরাঞ্চলের মানুষ। এখান থেকে মাত্র ২০ থেকে ২৫ মিনিটের মধ্যে পৌঁছে যেতে পারবেন ভারতের শিলিগুড়িতে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পশ্চিম অঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসিম কুমার তালুকদারের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার, জেলা প্রশাসক পঙ্কজ ঘোষ, পুলিশ সুপার গোলাম সবুর, পশ্চিম অঞ্চল রেলওয়ের প্রধান প্রকৌশলী আসাদুল হক, প্রকল্প পরিচালক আব্দুর রহিম, বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্য সরকার ফারহানা আক্তার সুমিসহ স্থানীয়রা।

news24bd.tv/FA