পর্যটন নগরী কক্সবাজারে যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সংগৃহীত ছবি

পর্যটন নগরী কক্সবাজারে যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

গত ১১ নভেম্বর ১৮ হাজার কোটি টাকায় নির্মিত দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইন প্রকল্প উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বপ্নের এই রেললাইনের পাশাপাশি কক্সবাজারে ৫৩ হাজার কোটি টাকার আরও ১৫টি প্রকল্প উদ্বোধন করেন তিনি এবং ৪টি প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।

মাতারবাড়ী এক হাজার ২০০ মেগাওয়াটের কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র

সরকারের মেগা প্রকল্পগুলোর অন্যতম মাতারবাড়ী তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র। এটি জাপানের আর্থিক সহায়তায় ৫১ হাজার ৮৫৪ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম।

কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটে পরীক্ষামূলকভাবে উৎপাদন শুরু হয় ২৯ জুলাই দুপুরে। ৬ মেগাওয়াটের পরীক্ষামূলক উৎপাদনের কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর এটি ১২ মেগাওয়াটে উৎপাদন শুরু করে অক্টোবরের শুরুতে।

সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে কুতুবদিয়ায় জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সংযুক্ত প্রকল্প

এই প্রকল্পের আওতায় কক্সবাজারের দ্বীপ উপজেলা কুতুবদিয়ায় প্রথমবারের মতো জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সংযুক্ত হয়েছে। সমুদ্রের নিচ দিয়ে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে কুতুবদিয়ায় জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে।

প্রকল্পটি পরীক্ষামূলকভাবে গত ১৩ এপ্রিল চালু করা হয়। ওই দিন থেকে দ্বীপটির দেড় হাজার গ্রাহক পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুৎ সুবিধা পেতে শুরু করে।

বাঁকখালী নদীতে ৫৯৬ মিটার পিসি বক্স গার্ডার ব্রিজ

কক্সবাজার বিমানবন্দর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কস্তুরাঘাট সংলগ্ন বাঁকখালী নদীর ওপর নির্মিত হয়েছে ‘কক্সবাজার-খুরুশকুল’ সংযোগ সেতু। এটি হচ্ছে বক্স গার্ডার সেতু ৫৯৬ মিটার দীর্ঘ এই সেতু নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ২৫৯ কোটি টাকা। সেতুটির আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হয় ২০১৯ সালের ১ সেপ্টেম্বর। ২০২১ সালের আগস্টের মধ্যে এর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও করোনা মহামারি ও নানা জটিলতায় কাজ শেষ হতে ২০২৩ সালের অক্টোবর পর্যন্ত লেগেছে। চার হাজার ৪০৯টি পরিবারকে খুরুশকুল প্রান্তে আশ্রয়ন প্রকল্পে আবাসন ব্যবস্থা করে দিয়েছে সরকার। তাদের যাতায়াতে এই সেতুটি ব্যবহৃত হবে। এছাড়া, সেতুটি নির্মাণের ফলে চট্টগ্রামের সঙ্গে কক্সবাজারের দূরত্ব অনেক কমে যাবে।  

বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প

একইদিনে প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অধীনে ২৬২ কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার সদরে খাল লাইনিং অ্যাপ্রোচ রোড এবং ব্রিজ নির্মাণ প্রকল্প। এবং পর্যটন মন্ত্রানালয়ের ওয়ান স্টপ সার্ভিস ফর ট্যুরিস্ট প্রকল্প। যেই প্রকল্পের অধীনে পর্যটকদের জন্য যেকোনো সেবা ও তথ্য দিয়ে তৎক্ষনাৎ সাহায্য করার জন্য একটা ইউনিট গঠন করা হবে।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের চারটি প্রকল্প

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের চার প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে- চার কোটি টাকার বেশি ব্যয়ে নির্মিত কুতুবদিয়ার কৈয়ারবিল ঠান্ডা চৌকিদার পাড়ার ৬০ মিটার সিসি গর্ডার ব্রিজ, ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে চকরিয়া বাস টার্মিনাল সম্প্রসারণ প্রকল্প, উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প ও সাড়ে ৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত গোরকঘাটা সড়ক প্রশস্তকরণ।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের চার প্রকল্প

তিন কোটি টাকা ব্যয়ে কক্সবাজার সদরের জাহারা ইসলাম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন, দুই কোটি টাকা ব্যয়ে মহেশখালীর ইউনুসখালি নাছির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন, প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে উখিয়ার রত্নাপালং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় এবং মারিচ্যা পালং উচ্চ বিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন নির্মাণ প্রকল্প।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণাালয়

১৩৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪০টি উপজেলায় ৪০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এবং চট্টগ্রামে একটি ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি প্রকল্পের অধীনে ২৫ কোটি ব্যায়ে নির্মিতব্য রামু কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের প্রকল্প

কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পর্যটকদের জন্য শহর ঘুরে দেখার জন্য একটি বিশেষ ব্যাবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইউরোপের দেশগুলোতে এমন ছাদখোলা টুরিস্টবাস দেখা যায়, যা সারা শহর ঘুরে বেড়ায় এবং পর্যটকদের দর্শনীয় স্থানগুলো ঘুরে দেখায়। এই প্রকল্পের অধীনে দুটি ছাদখোলা টুরিস্ট বাস উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

যেসব প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়, সেগুলো হলো- টেকনাফ বহুমুখী দুর্যোগ প্রতিরোধক আশ্রয়কেন্দ্র কাম আইসোলেশন সেন্টার, রামু উপজেলার নন্দা খালিতে ১৮৪টি সেতু আরসিসি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, জেলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাব স্কাউটিং সম্প্রসারণ প্রকল্পের আওতায় ভবন নির্মাণ প্রকল্প, প্রাথমিক স্কুলগুলোতে কাব স্কাউটিং সম্প্রসারণ প্রকল্প।

news24bd.tv/আইএএম