শেখ হাসিনার প্রশংসা, নারী নেতৃত্বে বিশ্বে সপ্তম স্থানে বাংলাদেশ

ফাইল ছবি

শেখ হাসিনার প্রশংসা, নারী নেতৃত্বে বিশ্বে সপ্তম স্থানে বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক

নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ বিশ্বে সপ্তম স্থানে অবস্থান করছে। যেখানে ভারতের অবস্থান-৫১, পাকিস্তান ৯৮, শ্রীলংকা ৯০। গ্লোবাল জেন্ডার গ্যাপইনডেক্স ২০২০ র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ৫০। অথচ পৃথিবীর সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ যুক্তরষ্ট্রের অবস্থান ৫৩, ইতালি৭৬,ভারত ১১২, যেখানে প্রথম অবস্থানে আছে আইসল্যান্ড।

লৈঙ্গিক সমতায় এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে ৯ম স্থানে। এসব তথ্য প্রকাশ করেছে দ্য বিজনেস পোস্ট বুধবার(৬ডিসেম্বর)। এর আগে প্রশংসা করেছে ওয়ালর্ড ইকনোমিক ফোরাম।  

 ্প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নে বিশ্বে একটি রোল মডেল হিসেবে তৈরি হয়েছে।

ইতোমধ্যেই নারীদের অংশ গ্রহণকে ২০৪১ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যমাত্রা প্রণয়ন করা হয়েছে।

অর্থনীতিতে এখন নারীদের অবদান মোট জিডিপির ২০ শতাংশের বেশি। বাংলাদেশের মূল বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের সেক্টর হলো আরএমজি সেক্টর। এই সেক্টরের শতকরা ৮০ শতাংশ নারী। বাংলাদেশের আর একটি অন্যতম সেক্টর সেবা খাত। এই খাতের ৭০ শতাংশ কর্মী নারী।  নারীর অংশগ্রহণের হার ৩৮ শতাংশের ও বেশি।

 প্রযুক্তি-নির্ভর উন্নয়ন অগ্রযাত্রায়  সারাদেশে ১১ হাজারের বেশি ডিজিটাল সেন্টার স্থাপিত হয়েছে, যেখানে অর্ধেকেরও বেশি সংখ্যক নারী কর্মী কাজ করছেন।

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছেন নারীরা। যেমন- বিচারপতি, সচিব, উপাচার্য ,ডেপুটি গভর্নরসহ পদে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশে লিঙ্গসমতা অর্জনও নারীর ক্ষমতায়নে গৃহীত বিভিন্ন নীতি ও কার্যক্রম চলমান অবস্থায় আছে। যেমন; নারী উদ্যোক্তাদের জন্য জামানতবিহীন ঋণ,  নারী শিক্ষা উন্নয়নে ভাতা,জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি, অতি দরিদ্র নারীদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী সৃষ্টি, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা নারীদের ভাতা, প্রসূতি ও দুগ্ধ দানকারী নারীদের ভাতা, খাদ্য নিরাপত্তা কর্মসূচি,  নারীর বিরূদ্ধে সহিংসতারোধ ইত্যাদি।  

news24bd.tv/ডিডি

পাঠকপ্রিয়