আ.লীগ-জাপার আসন ভাগাভাগির আলোচনা অমীমাংসিত

ফাইল ছবি

আ.লীগ-জাপার আসন ভাগাভাগির আলোচনা অমীমাংসিত

শুক্রবার বৈঠক হতে পারে

অনলাইন ডেস্ক

আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে আসন ভাগাভাগির বিষয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে ঐকমত্যে পৌঁছাতে অনুরোধ করেছে জাপা। গত বুধবার এ নিয়ে দুদলের বৈঠক হয়। তবে বৈঠকে যে আসন ভাগাভাগির বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে এ নিয়ে দুপক্ষই মুখ খুলতে নারাজ।  

বৈঠকের পর জাহাঙ্গীর কবির নানক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আগামী নির্বাচনকে কীভাবে সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক করা যায়, সে বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

জাতীয় পার্টি প্রার্থী দিয়েছে, তারা তাদের নির্বাচন করবে। আমরা আমাদের প্রার্থী দিয়েছি, আমরা আমাদের নির্বাচন করব। ’

তবে জোট গঠন বা আসন বণ্টন নিয়ে আলোচনা কত দূর এগুলো, সে প্রশ্নে কোনো মন্তব্য করেননি তিনি।  

জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকেও প্রকাশ্যে কিছু বলা হচ্ছে না।

গতকাল বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি পৃথক সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়েছে, আসন ভাগাভাগি নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।

জানা গেছে, শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) অথবা শনিবার ( ৯ ডিসেম্বর) আবারও দু’দলের বৈঠকে বসার সম্ভাবনা আছে। এই বৈঠকে আসন ভাগাভাগি হবে কিনা এ নিয়ে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে পারে।  

জানা গেছে, আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটে না থেকেও দলটির সঙ্গে আসন সমঝোতা করতে চাচ্ছে জাতীয় পার্টি। ৩৫ থেকে ৪০ আসনে সমঝোতা হলেই সন্তুষ্ট থাকবে দলটি। জাতীয় পার্টির একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

গত বুধবার দুদলের বৈঠকের পর জাপার একাধিক সিনিয়র নেতা গুলশান-২ এ দলের এক নেতার বাসায় তাদের পরবর্তী কর্মপন্থা নির্ধারণ করেন বলেও সূত্র জানায়।

দলের অভ্যন্তরীণ অনেকে বলছেন, নির্বাচনে শীর্ষ নেতাদের জয় নিশ্চিত করা কঠিন মনে হলে, শেষ মুহূর্তে ভোটের দৌড় থেকে জাপা সরেও যেতে পারে।
২০১৮ সালের নির্বাচনে জাপা প্রার্থীদের পথ সহজ করতে ২৬টি আসনে কোনো প্রার্থী দেয়নি আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে ২১টিতে জয়ী হন জাপা মনোনীত প্রার্থীরা।
এবার আওয়ামী লীগ প্রায় সব আসনেই প্রার্থী দিয়েছে। সব আসনে জাপার প্রার্থীও আছে।

news24bd.tv/ডিডি

পাঠকপ্রিয়